ঢাকা, রোববার 27 November 2011, ১৩ অগ্রহাহণ ১৪১৮, ০১ মুহাররম ১৪৩৩
Online Edition
  • ঈশ্বরদী বিমান বন্দর কাগজ কলমে চালু ১৫ বছর ধরে ওঠা নামা করছে না বিমান

    কাগজ কলমে ঈশ্বরদী বিমান বন্দর চালু থাকলেও বিগত প্রায় ১৫ বছর ধরে এই বন্দর থেকে কোন বিমানই ওঠা নামা করছে না। ঈশ্বরদী থেকে কৃষি পণ্য ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন হাট বাজার খুব সহজেই সরবরাহ করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি দেশের বাইরেও রফতানি করে কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব হবে। এ থেকে সরকারও প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব পাবে বলেও সচেতন মহলের অভিমত। কারণ দেশের চাহিদার প্রায় এক তৃতীয়াংশ সবজি উৎপাদন ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • ঐতিহ্যবাহী পতিরাজপুর তিন গম্বুজ মসজিদ

    পাবনা জেলার অন্তর্গত অন্যতম একটি উপজেলা ঈশ্বরদী। দেশের অন্যান্য স্থানের মতো ঈশ্বরদীর প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে নানা স্থাপত্য শিল্প। একটি ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্য শিল্প ঈশ্বরদী উপজেলার পতিরাজপুর তিন গম্বুজ জামে মসজিদ। আজ থেকে প্রায় পাঁচশ' বছর আগে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। নির্মাণ শৈলী ও বৈশিষ্ট্য : চুন সুরকি ও বাংলা ইটের দ্বারা নির্মিত হালকা লাল রংয়ের মসজিদটি প্রথম ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ির চাকা শিল্প বিলুপ্তির পথে

    পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী গরু-মহিষ গাড়ির চাকা শিল্প ধ্বংসের কবল থেকে রক্ষা করার জন্য সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা জরুরি হয়ে পড়েছে। অতি পুরাতন ঐতিহ্য নিয়ে স্থানীয় মিস্ত্রি শ্রমিক ও ব্যবসায়ীগণের পরস্পর সহযোগিতায় ঈশ্বরদী উপজেলার হালপাতি চাকা শিল্পের যাত্রা শুরু হয়। অনেক পুরাতন দিনে কোন এক সময়ে মানুষের যানবাহন ও মালামাল পরিবহনে গরু-মহিষের গাড়ি ব্যাপকভাবে ব্যবহারের ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • ৯০টি প্লটের মধ্যে ৫৯ টির হস্তান্তর হলেও গড়ে ওঠেনি কারখানা

    ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লী প্রকল্প মুখ থুবরে পড়ে আছে

    ঈশ্বরদী : আঞ্চলিকতা, রাজনৈতিক তৎপরতা, সরকারি উদ্যোগ ও স্থানীয় নেতাদের ভূমিকার অভাবে দীর্ঘ এক যুগ অতিবাহিত হলেও ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লীতে তাঁতীদের পূর্ণাঙ্গ কারখানা গড়ে ওঠেনি। বেনারসি পল্লী গড়ে ওঠার সময় তাঁতীদের মনে যে আশার আলো ও স্বপ্ন জেগেছিল তা এখন ভেঙ্গে যেতে বসেছে। ঈশ্বরদী বেনারসী পল্লীর তদারকি অফিস সাঁথিয়ায় হওয়ায় ও বোর্ডের কর্মকর্তাদের অবহেলার কারণেই অগ্রগতি নেই ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • রেলের পাকশী বিভাগীয় অফিসের আড়াই হাজার একর জমি বেদখল

    বাংলাদেশ রেলওয়ের পাকশী বিভাগের আওতাধীন প্রায় আড়াই হাজার একর জমি বেদখল হয়ে গেছে। এর মধ্যে সরকারি বিভিন্ন অফিস দখল করে আছে ৩৫২ একর জমি। লিজ দেয়া জায়গার বকেয়া খাজনার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩ কোটি টাকা। পাকশী বিভাগীয় ভূমি সম্পত্তি কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা গেছে একই বিভাগের রেলওয়ের মোট জমির পরিমাণ ২৬ হাজার ৪০৯ দশমিক ৬৪ একর এর মধ্যে রেলওয়ের নিজস্ব ব্যবহারে আছে ১৫ হাজার ১৮১ একর। ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে কামার শিল্প বিলুপ্তির পথে

    থানার কামার শিল্পে শ্রমিকদের ভয়াবহ দুর্দিন শুরু হয়েছে। সরকারিভাবে কখনও এদের পৃষ্ঠপোষকতা না করায় তাদের অবস্থা হয়ে উঠেছে ভয়াবহ। গত বছর থেকেই লোহার দাম বেড়ে চলেছে। সেই সাথে মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত এদের কাজ-কর্ম বন্ধ থাকে। এই তিন মাস কামার শ্রমিকরা চরম অভাব-অনটনে দিন কাটায়। এদিকে লোহার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কামার পরিবারকে আরও অভাব অনটনে ফেলায়। পিতৃপুরুষদের কাছ থেকে পাওয়া ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • কুষ্টিয়া অতিথি পাখির অভয়ারণ্য!

    খালিদ হাসান সিপাই, কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার গ্রামে গ্রামে প্রতি বছরের মত আসছে শত শত অতিথি পাখি। দিনরাত কলতানে মুখরিত করে রাখছে এলাকা। জেলার বিভিন্ন নদী, জলাশয় গাছ গাছালিতে আশ্রয় নিচ্ছে এসব পাখি। জেলার স্থানীয় বসিন্দারা জানান, বিগত কয়েক বছর ধরে গাছে বাসা বাঁধছে এসব পাখি। প্রায় ৪ মাস শীতের সময় তারা এখানে থাকে। তারপর কিছু পাখি চলে যায়। এসব পাখি মদনটাক অথবা হারগিলা প্রজাতির। এরা ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • সাগর কলার বাগান থেকে প্রতি বছর আড়াই লাখ টাকা আয়

    রাউজান সংবাদদাতা : রাউজানের গহিরা দলই নগরের ব্যাংকের গার্ড নুরুল হক প্রতি বছর এক লক্ষ টাকা খরচ করে সাগর কলার বাগান থেকে প্রতি বছর ২ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা আয় করে। রাউজান উপজেলার ৪ নং গহিরা ইউনিয়নের দলই নগর এলাকায় মৃত শরাফত আলীর পুত্র নুরুল হক ফটিকছড়ি আজাদী বাজার কৃষি ব্যাংকে গার্ড পদে চাকুরী করে। চাকুরীর ফাঁকে দুইজন লোক নিয়ে বাড়ীর পাশে মসজিদের নামে এক একর জমি প্রতি বছর চল্লিশ ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • বাঁশের কাজ করে ওরা এখন স্বাবলম্বী

    ঈশ্বরদী উপজেলার মানিকনগর গ্রামের লোকজন এখন বাঁশ শিল্পের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছে। একদিন এ গ্রামের মানুষ পেটে ক্ষুধা নিয়ে কাজের জন্য ছুটাছুটি করতো, তাদের ঘরে খাবার থাকতো না। বৌ-বাচ্চা নিয়ে অনাহারে থাকতে হতো। এখন তারা ঘরে বসে বাঁশ শিল্পের কাজ করে জীবনধারণসহ বিপুল পরিমাণ আর্থিক স্বাচ্ছন্দ্যের মধ্যে তাদের জীবনকে রঙিন করে তুলেছে। এমন এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়। ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ