ঢাকা, মঙ্গলবার 18 December 2012, ৪ পৌষ ১৪১৯, ৪ সফর ১৪৩৪ হিজরী
Online Edition

গর্ভবতীর রক্তশূন্যতায় কলার মোচা

সবজিবাজারে মাঝেমধ্যেই বিক্রির জন্য আনা হয় কলার মোচা। অনেকে মনে করেন, এত সবজি থাকতে কলার মোচা খাবো কেন? আসলে চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা বলেছেন, সবজিবাজারে যত ধরনের সবজিই কিনতে পাওয় যাক না কেন, তার মধ্যে কলার মোচার গুণ সেগুলোর তুলনায় কোনো অংশে কম নয়। তা ছাড়া এ সবজি যেমন স্বাদের তেমনি দামেও কম। কলার মোচা দেখতেও সুন্দর।

চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা বলেছেন, কলার মোচা আয়রন বা লৌহে ভরপুর। দেহের রক্ত বাড়ায় এর আয়রন। শক্তিশালী করে রক্তের মূল উপাদান হিমোগ্লোবিনকে। এই সবজির আয়রন ত্বক, চুল ইত্যাদি ভালো রাখতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। কারণ এতে যথেষ্ট পরিমাণে থাকে ক্যালসিয়াম, আয়োডিন, ম্যাগনেশিয়াম ইত্যাদি। আয়োডিন গয়টার বা গলগন্ড রোগ প্রতিরোধক। এ রোগ সাধারণত নারীদেরই হয়ে থাকে। তাই নারীদের নিয়মিত কলার মোচা খাওয়া দরকার।

দাঁতের গঠনেও অগ্রণী ভূমিকা পালন করে এই উপকরণগুলো। কলার মোচার খোসা খেতে হয় না বা তা খাওয়াও যয় না। খেতে হয় ভেতরের লম্বা ফুলগুলো। বিশেষ করে নারী বা মায়েদের মনে রাখা দরকার যে, যেকোনো ধরনের রক্তশূন্যতার জন্য ভীষণ জরুরি কলার মোচা। এ ছাড়া এ সবজিতে রয়েছে উচ্চমাত্রার ভিটামিন ‘এ'। রাতকানা রোগ আছে এমন শিশুদের জন্যও খুবই দরকারি কলার মোচা।

গর্ভস্থ শিশুর বা মায়ের পেটে থাকা সন্তানের ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ মস্তিষ্কের গঠন প্রক্রিয়া সহজ করে এই কলার মোচা। তাই যে সব মা কলার মোচা, কলার ভাড়ালি (কলা গাছের ভেতরের অংশ), কলার তরকারি নিয়মিত খান তাদের ও গর্ভজাত শিশুর রক্তশূন্যতা আক্রমণ করতে পারে না সহজে। হাড্ডি বা হাড়ের জটিল কোনো অপারেশন বা চিকিৎসার পর এই সবজির আয়রন বা লৌহ রক্ত বাড়াতে এবং হাড় দ্রুত শক্তিশালী বা মজবুত করতে ব্যাপকভাবে সাহায্য করে।

মনোপোজ হওয়া নারীদের বেশিরভাগই হাড়ের সমস্যায় ভোগেন। তাদের হাড় শক্ত বা মজবুত করতে হলেও এ সবজি খাওয়া দরকার নিয়মিত। বয়স্ক নারী-পুরুষ ও বাড়ন্ত শিশু, খেলোয়াড় বা যারা শারীরিক বা কায়িক পরিশ্রম বেশি করেন এই সবজি তাদের জন্য রীতিমতো আশীর্বাদ স্বরূপ। তবে এই সবজি বা খাবার টাটকা খেলে উপকার পাওয়া যায়।

পাতলা খায়খানা হলেও একটু বেশি পরিমাণে এই সবজি খেলে উপকার পাওয়া যায়। তবে যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য আছে তাদের এ সবজি অতি মাত্রায় খাওয়া অনুচিত। তাতে কষাভাব আরো বাড়ে। অনেকে ইচ্ছা-অনিচ্ছা এমনকি ফ্যাশন করে প্রচুর আয়রন ট্যাবলেট বা ওষুধ সেবন করেন। এতে শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তাদের এ ধরনের মানসিকতা দূর করে প্রাকৃতিক এই কলার মোচা খাওয়া দরকার। চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা বলেন, রক্তশূন্যতার ক্ষেত্রে টনিকের মতো কাজ করে কলার মোচা।

আব্দুল সেলিম

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ