ঢাকা, মঙ্গলবার 18 December 2012, ৪ পৌষ ১৪১৯, ৪ সফর ১৪৩৪ হিজরী
Online Edition

আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস আজ

স্টাফ রিপোর্টার : আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস আজ মঙ্গলবার। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য- ‘আইন মেনো যাবো বিদেশ' অর্থ এনে গড়বো স্বদেশ'। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি যথযথভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এদিকে, দিবসটি উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মোঃ জিল্লুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, অভিবাসী কর্মীদের মর্যাদা প্রদান, অধিকার সংরক্ষণ ও দেশের অর্থনীতিতে তাদের অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করতে এবং অভিবাসীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘ ২০০০ সাল থেকে ১৮ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। ২০০০ সালের ৪ ডিসেম্বর জাতিসংঘের ৫৫তম সাধারণ পরিষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দেশের প্রায় পৌনে এক কোটি মানুষ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কাজ করছে। জনবহুল এই দেশের জন্য বৈদেশিক কর্মসংস্থান একটি বিরাট সম্ভবনা সৃষ্টি করেছে। প্রবাসী আয়ের (রেমিট্যান্স) দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম। গত অর্থবছরে এ খাতে আয় হয়েছে ১২৮৪ কোটি ৩৪ লাখ মার্কিন ডলার। রেমিট্যান্সের কল্যাণেই বাংলাদেশের অর্থনীতি আজকের অবস্থানে এসেছে বলে সরকার, অর্থনীতিবিদ-গবেষক সকলেই এক বাক্যে স্বীকার করেন। তবে বিদেশ যাওয়ার বিড়ম্বনা এখনো কমেনি। ব্যয় বিশ্বের প্রায় অনেক দেশের তুলনায় বেশি। নারী অভিবাসীদের বেলায় ব্যক্তিগত ও পেশাগত নিরাপত্তাহীনতা উদ্বেগ পর্যায়েই রয়েছে।

কর্মসূচি

আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালি, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, জব ফেয়ার, শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতা, দু'দিন র‌্যালি অভিবাসন মেলা, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রবাসী কর্মীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় ইত্যাদি অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল ৮টায় জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজা থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‌্যালি এবং সকাল ১০টায় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার করা হয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদেশ থেকে আগত ও বিদেশে গমনকারী কর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিয়োগ করবেন।

রাজধানীর বাইরে ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে দেশের সকল জেলা-উপজেলায় এবং বিদেশে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করা হবে। এছাড়া দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে রেডিও-টেলিভিশনে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার ও জাতীয় দৈনিকসমূহে ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ