ঢাকা, বুধবার 12 November 2014 ২৮ কার্তিক ১৪২১, ১৮ মহররম ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

আইসিসিকে মেসেজ দিতে চাই বাংলাদেশ দল ভাল -মুশফিক, সাকিবকে প্রতিহত করতে চাই -হ্যামিল্টন মাসাকাদজা

চট্টগ্রাম অফিস : আজ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। সিরিজটা ৩-০ শেষ করে জিম্বাবুয়েকে  হোয়াইটওয়াশ করতে চাই বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ে দল অন্তত একটা টেস্ট জিততে মরিয়া হয়ে ওঠবে আজ। এতে তারা সাকিবকেই মূল বাধা মনে করছেন। এখন আমাদের সামনে সিরিজটা ৩-০ করে শেষ করার সুযোগ এসেছে, তাই করতে চাই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে (আইসিসি) মেসেজ দিতে চাই, বাংলাদেশ দল ভাল এবং প্রভাব বিস্তার করে ক্রিকেট খেলতে পারে। গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। দ্বিতীয় টেস্ট শেষে বেশ কিছু সমস্যা তিনি শনাক্ত করেছেন। আর এসব খুব তাড়াতাড়ি শুধরাতে চান মুশফিক। দ্বিতীয় টেস্ট শেষে মুশফিক বলেছিলেন অনেক জায়গায় ইমপ্রুভ করার সুযোগ আছে। সেসব জায়গা কোনগুলো এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মুশফিক বলেছেন, ‘প্রথমে অবশ্যই ফিল্ডিং। কিছু ক্যাচ আমাদের ড্রপ হয়েছে। জিম্বাবুয়ের সঙ্গে হয়েছে বিধায় সমস্যা হয়নি। কেননা আমরা অনেক চাপ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছি তাদের ওপর। আমার মনে হয় বড় কোনো দলের সঙ্গে হলে এ রকম সুযোগ তারা কখনই দেবে না কোনো ব্যাটসম্যানকে। আমাদের ওই জায়গাগুলোতে আরও ইমপ্রুভ করার আছে। আমরা যাতে অনেক সময় ধরে ধারাবাহিকভাবে মনোযোগ ধরে রাখতে পারি। পেস বোলিং বিভাগে হয়তো পেসাররা খুব বেশি উইকেট নেয়নি। কিন্তু আমার মনে হয় দ্রুত তারা চেষ্টা করছে, কমপক্ষে ঢাকায় যেটা হয়েছে দ্রুত ২-১ উইকেট তুলে নিয়েছে। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাটিংয়ে দু’একটি ছোট খাটো ভুল আমাদের হয়েছে। এটা যেন আমরা না করি। সেট হয়ে বড় ইনিংস খেলতে হবে সেটার প্রমাণ ২-১ জন করেছে। এই টেস্টে যারা সেট থাকবে তারা যেন বড় ইনিংস খেলতে পারে। আমার মনে হয় এই কয়েকটা ছোটখাটো জিনিস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। র‌্যাংকিংয়ের বিষয় মাথায় থাকায় আপনারা চাপে থাকেন কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেছেন, এই চিন্তাটা আসলে দু’দিক থেকে কাজ করতে পারে। একদিক থেকে বললে চাপেতো অবশ্যই রাখে। র‌্যাংকিংতো অবশ্যই একটা বড় ফ্যাক্টর। যতই খেলেন না কেন আলটিমেটলি যদি জয় পাওয়া সম্ভব না হয় কিংবা পয়েন্ট অর্জন না হলে আসলেতো কোনো লাভ নেই। সেদিক থেকে বললে অবশ্যই এটা চাপ সৃষ্টি করছে আমাদের ওপর। অন্যদিক থেকে বললে আমাদের মোটিভেশন অন্য রকম থাকে। আমরা টেস্ট ম্যাচ অন্যদের তুলনায় কম খেলি। আমাদের ভেতরে এই জেদটা কাজ করে। মুশফিক মনে করেন তিন সপ্তাহ ধরে বাংলাদেশে থাকা জিম্বাবুয়ে কন্ডিশনের সঙ্গে অনেকটাই মানিয়ে নিয়েছে। তাই স্বাগতিকদের চট্টগ্রাম টেস্টে প্রতিরোধের মুখে পড়তে হতে পারে। অন্যদিকে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিব আল হাসানকেই মূল বাধা মনে করছে জিম্বাবুয়ে। দুই ম্যাচে ১৭ উইকেট নেয়া এই বাঁহাতি স্পিনারকে ঠেকাতে পরিকল্পনা করেছে বলে জানান হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে জিম্বাবুয়ে দলের প্রতিনিধি হয়ে আসা হ্যামিল্টন মাসাকাদজা বলেন, সাকিবকেই মূল বাধা মনে করছি আমরা। আমরা এখানে আসার আগে থেকেই জানতাম, সে ভালো করবে। আমরা তার জন্য পরিকল্পনা করেছি। তাকে প্রতিহত করার ব্যাপারে আমরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছি। পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের আগে শেষ টেস্টটি জিততে চায় অতিথিরা। টেস্ট জেতার জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। বাংলাদেশে আমরা দীর্ঘ সময় কোনো টেস্ট জিতিনি। তাই আমরা এর জন্য সাগ্রহে অপেক্ষা করছি। শেষ টেস্ট জিতে আমরা ওয়ানডের জন্য আত্মবিশ্বাস নিয়ে যেতে চাই। বাংলাদেশের স্পিনারদের সামলাতে মানসিক দিক থেকে কোনো সমস্যা নেই অতিথিদের। কন্ডিশনের কারণেই স্পিনাররা দুর্বোধ্য হয়ে উঠেছেন বলে মনে করেন সফরে জিম্বাবুয়ের সেরা ব্যাটসম্যান মাসাকাদজা। আমার মনে হয় কন্ডিশনই আসল পার্থক্য। তবে স্পিনাররাও খুব ভালো বল করেছে। আমাদের সবারই তাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে হয়েছে। আমি আত্মবিশ্বাসী, ছেলেরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ