ঢাকা, বুধবার 12 November 2014 ২৮ কার্তিক ১৪২১, ১৮ মহররম ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র অর্থনৈতিক সম্পর্ক ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে -মজিনা

স্টাফ রিপোর্টার : মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা বলেছেন, এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ একটি উদীয়মান বাঘ। এখানকার পরিশ্রমী জনগণ তার জনশক্তিকে কাজে লাগিয়ে সমৃদ্ধশীল হয়ে উঠছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা ফিরে পাওয়া নির্ভর করছে কারখানার কর্ম পরিবেশ, শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার, ত্রুটিপূর্ণ গার্মেন্টগুলো সংস্কার করার ওপর। এসব শর্ত পূরণ হলেই বাংলাদেশ জিএসপি সুবিধা ফিরে পাবে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ইকনোমিক রিপোর্টারস ফোরামের আয়োজনে এক সংবাদিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন মজিনা।
মজিনা বলেন, বাংলাদেশ-আমেরিকার অর্থনৈতিক সম্পর্ক ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে। রফতানিতে বাংলাদেশের জন্য আমেরিকার একটি বৃহত্তম মার্কেট। বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক এই অর্থনেতিক সম্পর্ককে আমেরিকা আরও সমৃদ্ধ দেখতে চায়।
মজিনা বলেন, আইনের শাসনকে উন্নত করে, লাল ফিতার দৌরাত্ম, দুর্নীতি এবং রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা কমিয়ে আনতে পারলে এই উদীয়মান বাঘ আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগের কাংক্ষিত স্থান অর্জন করতে পারবে।
সংবাদিক সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি আমি বাংলাদেশের ৬৪টি জেলা ভ্রমণ করেছি। এই ভ্রমণের মাধ্যমে আমি জানতে পেরেছি বাংলাদেশ কতটা সমৃদ্ধশীল। এদেশের উর্বর মাটি, প্রচুর পরিমাণ পানি, চমৎকার জলবায়ু, বিপুল পরিমাণ প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুদ, উন্নত মানের কয়লার মতো মূল্যবান সম্পদ রয়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে এদেশের মানুষ কঠোর পরিশ্রমী, সৃষ্টিশীল এবং উদ্যোগী।
উপস্থিত এক সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমেরিকা এবং বাংলাদেশের মধ্যে শক্তিশালী ও ক্রমবর্ধমান একটি অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। বিশ্বে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাজার হলো যুক্তরাষ্ট্র (পাঁচ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি)। বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগকারী দেশগুলোর মধ্যে আমেরিকা অন্যতম এবং রেমিটেন্স ক্ষেত্রে তৃতীয় ও দ্বিতীয় বৃহত্তম উন্নয়ন সহযোগী অংশীদার।
সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি সুলতান মাহমুদ ও পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান। সংবাদিক সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, সহ-সভাপতি সৈয়দ শাহনেওয়াজ করিম, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ