ঢাকা, শুক্রবার 14 November 2014 ৩০ কার্তিক ১৪২১, ২০ মহররম ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

বাকপ্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণ

কালিহাতী (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা: কালিহাতীতে বাকপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রাম পুলিশ কৃষ্ণ চন্দ্র দাস ও ফজিলা নামের এক মহিলাকে আটক করা হয়েছে। কালিহাতী থানা পুলিশ জানায় গত (৮-১১-২০১৪) শনিবার ধর্ষিতার মেডিকেল চেকআপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রিপোর্টে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক পুলিশ সদস্য জানায়, এ ব্যাপারে ভিক্টিমের পক্ষসহ ঘটনার পক্ষে এবং বিপক্ষে আরো দু’টি পক্ষ দাঁড়িয়েছে। এ নিয়ে ঘটনাটি ত্রিমুখী দ্বন্দ্ব চলছে। সূত্রটি আরো জনায় আওয়ামী লীগের উর্ধ্বতন একটি মহল ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে ধামা চাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।
গত ২৫ অক্টোবর কালিহাতী উপজেলার দশকীয়া ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে ১৪ বছরের বাক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে ইউপি সদস্য মোঃ শহীদুল ইসলাম, কোরবান আলী ও মোঃ শাহজাহান আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এ কাজে তাদের সহযোগিতা করে গ্রামপুলিশ কৃষ্ণচন্দ্র দাস ও ফজিলা নামের এক মহিলা। প্রথমদিকে টাকার বিনিময়ে ওই ৩ ইউপি সদস্য ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করলেও পরে তা প্রকাশ পেয়ে যায়। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। পরে বৃহস্পতিবার রাতে বাক-প্রতিবন্ধী কিশোরীর মা বাদী হয়ে ইউপি সদস্য মো. শহীদুল ইসলামকে প্রধান আসামী করে অপর দুই ইউপি সদস্য কোরবান আলী ও মোঃ শাহজাহান আলীর বিরুদ্ধে কালিহাতী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ওই রাতেই গ্রাম পুলিশ কৃষ্ণ চন্দ্র দাস ও ফজিলা নামের মহিলাকে আটক করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ