ঢাকা, বুধবার 19 September 2018, ৪ আশ্বিন ১৪২৫, ৮ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চলতি অধিবেশনেই ছিটমহল বিল ?

সংগ্রাম ডেস্ক : বাংলাদেশের সঙ্গে ছিটমহল চুক্তি সংক্রান্ত বিল পাস করাতে উদ্যোগী হয়েছে দিল্লি। চলতি অধিবেশনেই এই বিল পাস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
 
আজ (মঙ্গলবার) সংসদে এ সংক্রান্ত বিলের খসড়া চূড়ান্ত হবে বিদেশ সংক্রান্ত স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী সপ্তাহেই বিলটি পাস হয়ে যাবে।
 
১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় দিবসকে সামনে রেখে তার আগেই বিল পাস করে বাংলাদেশকে উপহার দিতে চাইছে কেন্দ্র সরকার। এরপর জানুয়ারিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে যেতে পারেন বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
 
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছিটমহল নিয়ে তার অনাপত্তির কথা আগেই জানিয়েছিলেন। তবে তিনি জানিয়েছেন, ‘এ নিয়ে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, তাদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে কেন্দ্র সরকারকে এবং এই ক্ষতিপূরণের পরিমাণ ঠিক করতে হবে রাজ্য সরাকারের সঙ্গে আলোচনা করে।’
 
কার্যত মমতার এই দাবিকে মেনে নিয়েছে কেন্দ্র। ফলে পশ্চিমবঙ্গের দিক থেকে আর কোনো সমস্যাই থাকছে না। 
 
বিগত ইউপিএ সরকারের আমলে ছিটমহল বিনিময়ে সবচেয়ে আপত্তি ছিল আসামের বিজেপি নেতাদের। আপত্তি ছিল আরএসএস-এরও। সেই সময় আপত্তি জানিয়েছিলেন  কেন্দ্রীয় তৎকালীন বিরোধী নেত্রী ও বিজেপি নেত্রী সুষমা স্বরাজ।

কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর এখন বিজেপি’র শীর্ষ নেতৃত্বের অবস্থান বদলে গেছে। এর ফলে আসামের যেসব বিজেপি নেতারা এই বিষয়ে আপত্তি জানাচ্ছিলেন, তারাও আর আপত্তি জানাচ্ছেন না। সিপিএম আগে থেকেই রাজি ছিল, কংগ্রেসও এই বিল পাস করানোর পক্ষে। অন্য দলেরও কোনো আপত্তি নেই। ফলে সংসদের শীতকালীন অধিবেশনেই বিতর্ক ছাড়াই এসংক্রান্ত সংবিধান সংশোধনী বিল পাস হতে চলেছে।

এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে বাংলাদেশ সরকারের একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফরে গেছেন বলেও জানা গেছে। গতকাল সোমবার তারা পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য ও কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেছেন। বিজেপির চন্দন মিত্রের সঙ্গেও তাদের কথা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শশী থারুর এবং বিজেপি নেতা অনুরাগ ঠাকুরের সঙ্গে তারা দেখা করবেন।
আ.হু/সংগ্রাম

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ