ঢাকা, মঙ্গলবার 25 September 2018, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

নারীবাদীরা মাতৃত্বকে প্রত্যাখ্যান করেছে: এরদোগান

বিবিসি: তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোগান বলেছেন, নারী ও পুরুষের সমতার দাবি প্রকৃতি বিরুদ্ধ। নারীবাদীরা মাতৃত্বকে প্রত্যাখ্যান করেছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।
গতকাল সোমবার ইস্তাম্বুলে নারী অধিকার ও স্বাধীনতা নিয়ে আয়োজিত এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এরদোগান এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘নারী ও পুরুষদের আপনি একই জায়গায় রাখতে পারবেন না। এটা প্রকৃতি বিরুদ্ধ।’
‘কর্মক্ষেত্রে, একজন গর্ভবতী নারী ও একজন পুরুষকে একই নিয়মে ফেলা যায় না। পুরুষেরা যেসব কাজ করতে পারে তার সবগুলো করা নারীদের পক্ষে সম্ভব নয়, কারণ এটি তাদের পেলব স্বভাবের বিরুদ্ধে যায়,’ বলেন তিনি।
এরদোগান বলেন, ‘আমাদের ধর্মে (ইসলাম) মাতৃত্বকে অনেক সম্মান দেয়া হয়েছে। নারীবাদীরা তা বুঝতে পারে না, তারা মাতৃত্ব প্রত্যাখান করেছে।’
তিনি বলেন, সমঅধিকার না, নারীদের দরকার সমশ্রদ্ধা।
বর্ণবাদ, ইহুদি বিরোধীতা এবং নারীদের সমস্যার মতো বিশ্বের বেশিরভাগ সমস্যার সমাধান ইনসাফ বা ন্যায়বিচারে আছে বলে মন্তব্য করেন এরদোগান।
এরদোগান বলেন, ‘আমরা যখন ন্যায়বিচারের দৃষ্টিতে মানবজাতির দিকে তাকাতে সক্ষম হব তখন স্বচ্ছ, মানবিক ও বিবেকসম্পন্ন উপায়ে নারী ও পুরুষের মধ্যে বৈষম্য দূর করা সম্ভব হবে।’
‘নারীদের কি দরকার? কখনো কখনো তারা নারী ও পুরুষের সমতা নিয়ে কথা বলেন।তবে নারীতে নারীতে সমতা ও পুরুষে পুরুষে সমতা অধিক নিভুর্ল। যেটা  বিশেষভাবে প্রয়োজন তা হলো ন্যায়বিচারে নারীদের সমতা।’
তিনি বলেন, ‘সমতায় একজন ভিকটিম নিপীড়কে পরিণত হয় অথবা তার বিপরীতটাও ঘটে। নারীদের জন্য যেটা প্রয়োজন তা হলো সমতুল্যতা, সমতা নয়।’
নারীদের তিনটি সন্তান গ্রহণের ওপর জোর দিয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন গর্ভপাত একটি ‘হত্যা’।
নারীবাদ ও নারীবাদীরা মাতৃত্বের ধারণাকে প্রত্যাখ্যান করেও বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
তিনি মহানবী সা. এর বাণী উদ্ধৃত করে বলেন,‘মায়ের পায়ের নীচে সন্তানের বেহেশত।’
এ সময় তিনি তার মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, ‘আমি আমার মায়ের পায়ে চুম্বন করতে চাই। কারণ সেখানে বেহেশতের ঘ্রাণ আছে। তিনি লজ্জাবনক দৃষ্টিতে তাকাবেন এবং কখনো বা কেঁদে ফেলবেন। মাতৃত্ব একটা ভিন্ন জিনিস।’
এরদোগানের মা জেনজিল এরদোগান ৮৮ বছর বয়সে ২০১১ সালে মারা যান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ