ঢাকা, বৃহস্পতিবার 20 September 2018, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বড়াইগ্রামে ভন্ডপীরের প্ররোচনায় মেয়েকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করলো বাবা

বড়াইগ্রাম (নাটোর) সংবাদদাতা: নাটোরের বড়াইগ্রামের মনপিরীত গ্রামে ভন্ডপীরের প্ররোচনায় গুপ্তধন পাওয়ার লোভে নিজ সন্তানকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করেছে নাজমুল ইসলাম নামের এক পাষন্ড বাবা। এ সময় সে একটি কুরআন শরীফও ছিঁড়ে ফেলে। এ ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন নাজমুলকে আটক করলেও মানসিক রোগী বলে তাকে কৌশলে সরিয়ে দিয়েছে নাজমুলের স্বজন ও পরিবারের লোকজন।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, বড়াইগ্রামের মনপিরীত গ্রামের আবু বকরের ছেলে নাজমুল পেশায় একজন কাঠ মিস্ত্রি। তার বাড়িতে নিয়মিত কিছু ভন্ড সন্যাসী বা দরবেশ জাতীয় লোকজন যাতায়াত করতো। এদের নিয়ে আসর বসানোর জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার নাজমুল তার বাড়িতে একটি টিনের চালা ঘর তৈরি করেন। ভন্ড পীরের কথামত গুপ্তধন পাওয়ার লোভে নাজমুল আজ শুক্রবার সকালে একটি কোরআন শরীফ ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে। পরে নিজের সাড়ে তিন মাসের কন্যা সন্তান নুশরাত রুকাইয়াকে বাড়ির পাশের একটি পুকুরে চুবিয়ে হত্যা করে। এর পর স্থানীয়রা নাজমুলকে আটক করে। কিন্তু পরিবারের লোকজন নাজমুলকে মানসিক রোগী বলে দাবী করে। এ সময় নাজমুলের এক চাচা তাকে মানসিক রোগী বলে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে সরিয়ে দিয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় এলাকায় জনরোষের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় শিশুটির মা মঞ্জুয়ারা বাদী হয়ে নাজমুল হোসেনকে আসামী করে থানায় মামলা করেছেন। আসামী পলাতক রয়েছে। তাকে দ্রুত আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ