ঢাকা, রোববার 18 November 2018, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ইরাকি সেনাবাহিনীতে ৫০ হাজার ভৌতিক সৈন্য

ইরাকী সেনাবাহিনীতে এমন ৫০ হাজার সেনার নাম পাওয়া গেছে, সেনাবাহিনীতে যাদের কোনো অস্তিত্ব নেই। দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে গতকাল রোববার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়েছে।
দেশটিতে সামরিক বাহিনীর বাজেট তিনগুণ করার ঘোষণার পর সেনা সদস্যদের প্রকৃত সংখ্যা গণনা শুরু করে সরকার। সেখানেই এ তথ্য উঠে এসেছে।
প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদির কার্যালয় থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সেনাবাহিনীতে ৫০ হাজার কল্পিত সদস্যের নাম পাওয়া গেছে।’ সেনাবাহিনীর ভাষায় এ ধরনের সদস্যদের ‘ভৌতিক সেনা’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।
বার্তা সংস্থা এএফপিকে ইরাকী সেনাবাহিনীর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘সাধারণত দুই ভাবে এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে। যেমন প্রত্যেক অফিসার পাঁচজন রক্ষী রাখতে পারে। কিন্তু দেখা গেল, তিনি পাঁচজনকে নিয়োগ দিয়ে দুইজনকে রাখলেন। বাকি তিনজনকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়ে তাদের বেতন পকেটস্থ করলেন বা চুক্তির ভিত্তিতে মাসিক বেতন থেকে নিয়মিত কিছু অংশ কেটে রাখলেন।’
তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয় মাধ্যম হল- একটি ব্রিগেডে অনেক সৈন্য থাকে। ব্রিগেডের কমান্ডাররা প্রতিটি ব্রিগেডে ৩০-৪০ জন সৈন্য দেখান, যাদের প্রকৃতপক্ষে বাহিনীতে কোনো অস্তিত্ব নেই। এর মাধ্যমে তিনি ওই সেনাদের নামে বেতন-ভাতা বাবদ বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেন।’
তিনি আরও বলেন, এ ছাড়া আরও অনেক সেনা আছেন, বিভিন্ন অভিযোগে যাদের চাকরি চলে গেছে অথবা নিহত হয়েছেন। কিন্তু অফিসাররা তাদের প্রকৃত তথ্য গোপন করে চাকরিরত দেখিয়ে বেতন-ভাতাদি উঠিয়ে নেন।
সম্প্রতি আইএসবিরোধী (ইসলামিক স্টেট) লড়াইয়ে সেনা সদস্যদের ‘বিতর্কিত’ ভূমিকা ও বাহিনী থেকে দুর্নীতি দূর করতে সামরিক বাজেট বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে ইরাকী সরকার। যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো এ খাতে বিপুল পরিমাণ বরাদ্দ দিচ্ছে। সূত্র: আলজাজিরা ও বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ