ঢাকা, সোমবার 19 November 2018, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

স্থলসীমান্ত বিল দ্রুত লোকসভায় উত্থাপনের তাগিদ

বাংলাদেশের সঙ্গে স্থল সীমান্ত চুক্তির বিল দ্রুত লোকসভায় উত্থাপনের তাগিদ দিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সীমান্ত চুক্তি নিয়ে অগ্রসর হওয়ার ঘোষণার একদিন পরই এ তাগিদ দেয় দেশটির সংসদীয় কমিটি।

সোমবার ভারতীয় সংসদের নিম্নকক্ষের এক সভায় দুই দেশের মধ্যে স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য খুব দ্রুত তা বিল আকারে উত্থাপনের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানায় কমিটি।

কংগ্রেস এমপি শশী থারুরের এর সভাপতিত্বে সংসদীয় কমিটির সভায় উপস্থিত ছিলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের এমপি সুজাতা বোস, বিজেপির অনন্ত কুমার হেগদে এবং বরুণ গান্ধি।

সভায় বলা হয়, “স্থল সীমান্ত চুক্তি একটি জাতীয় ইস্যু। এটি বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরো দৃঢ়তর হবে।”

সভার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, “এ চুক্তি বাস্তবায়ন হলে সীমান্ত এলাকায় আধুনিক ভূ-তাত্ত্বিক একটা পরিবর্তন আসবে। আর সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঠেকানোর যে বিষয়টিকে সরকার গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে তার বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।”

১৯৭৪ সালের ইন্দিরা গান্ধী ও শেখ মুজিবুর রহমানের করা বাংলাদেশ-ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তির আলোকেই বিল তৈরি করা হয়েছে। ২০১১ সালে স্বাক্ষরিত এ চুক্তিটি ভারতের সংসদের উভয়কক্ষে অনুমোদন পায়নি।
চুক্তি অনুসারে ভারত তাদের ১১১ টি ভূ-খণ্ড যার পরিমাণ ১৭ হাজার ১৬০ একর বাংলাদেশের সঙ্গে বিনিময় করবে। আর এর বিনিময়ে ভারত পাবে ৫১ টি ভূ-খণ্ড যার পরিমাণ ৭,১১০ একর। দুই দেশের অমীমাংসিত সীমান্তের মধ্যে ৫১ হাজার লোকের বসবাস।

সংসদীয় কমিটি জানায়, “চুক্তির আলোকে কেবল ভারতে অবস্থানকারীরা বাংলাদেশে যাচ্ছে না, এর ফলে বাংলাদেশ থেকে যারা ভারত আসবে তারা এ দেশের নাগরিকত্ব পাবে।”

কমিটি জানায়, “সীমান্ত এলাকার নিরাপত্তা আরো জোরদার করতে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে কথা বলা হবে। যেসব প্রকৃত বাংলাদেশিরা ভারতের নাগরিকত্ব পাবে তাদের বিষয়ে প্রয়োজনীয় কৌশল অবলম্বন করা হবে।”-ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ