ঢাকা, শুক্রবার 21 September 2018, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বঙ্গোপসাগরে অবৈধ সমুদ্রযাত্রার সংখ্যা বেড়েছে

অনলাইন ডেস্ক: জাতিসংঘের প্রতিবেদন বলছে, বঙ্গোপসাগর দিয়ে অবৈধ সমুদ্রযাত্রা আগের চেয়ে বেড়েছে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এবছর প্রায় ৫৩ হাজার বাংলাদেশী এবং রোহিঙ্গা অবৈধভাবে মালয়েশিয়া এবং থাইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে সমুদ্র পাড়ি দিয়েছেন।

প্রতিবেদনটি বলছে, এদের মধ্যে প্রায় ২১ হাজার মানুষ গত তিন মাসের মধ্যেই সমুদ্র পাড়ি দেয়।

শুক্রবার জেনেভা থেকে প্রকাশিত ঐ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সমুদ্রপথে এধরণের পাচারের সংখ্যা আগের তুলনায় বেড়েছে। গতবছরের তুলনায় বঙ্গোপসাগর দিয়ে এমন অবৈধ সমু্দ্রযাত্রার সংখ্যা ৩৭ শতাংশ বেশি।

যাত্রাপথে পাচারকারীদের নির্যাতন এবং পর্যাপ্ত খাদ্য বা পানির অভাবের কারণে প্রায় ৫৪০ জন মারা গেছে। প্রতিবেদনটি বলছে, তাদের মরদেহগুলো নৌকা থেকে সমুদ্রে ফেলে দেয়া হয়।

পাচার হওয়া এসব মানুষদের মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ নারী এবং ইউএনএইচসিআর থাইল্যান্ডে যাদের সাথে সাক্ষাৎ করেছে তাদের এক-তৃতীয়াংশের বয়সই ১৮ বছরের নীচে।

এদের অনেকেই দালালদের স্বেচ্ছায় অর্থপ্রদান করে সমুদ্রপাড়ি দিলেও অনেকেই বলেছেন, তাদের জোরপূর্বক নৌযাত্রায় বাধ্য করা হয়েছে।

থাইল্যান্ডে পৌছানোর পর পাচারকারীরা অনেককে বন্দীশিবিরে আটকে রেখে আত্মীয়-স্বজনের কাছে মুক্তিপণ দাবী করেছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। মুক্তিপণ দিতে ব্যর্থ হলে তাদেরকে মারধরসহ নানাধরণের নির্যাতন করা হয়।
সূত্র: বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ