ঢাকা, বুধবার 21 November 2018, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কাপাসিয়ায় নিখোঁজের ১২ঘণ্টা পর ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

কাপাসিয়া (গাজীপুর) সংবাদদাতা: গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের কীর্ত্তনিয়া গ্রামের সাইকেল-রিক্সা যন্ত্রাংশের ব্যবসায়ী তমিজ উদ্দিন (৪২) নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর বাড়ি থেকে প্রায় ৪০০ গজ দূরে তার মৃতদেহ বিলের পাড় থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। থানা পুলিশ লাশ ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কীর্ত্তুনিয়া গ্রামের আবদুল জব্বারের পুত্র তমিজ উদ্দিনের লাশ সোমবার সকালে পুলিশ বানার বিলের পাড়ে কাদা পানিতে পড়ে থাকা মৃতদেহ উদ্ধার করে। নিহত ব্যবসায়ী গত রবিবার সন্ধ্যায় ব্যবসার কাজে পার্শ্ববতী উজলী বাজার থেকে কীর্ত্তুনিয়া বাজারে যান এবং  রাত প্রায় ৮টার দিকে ছেলের জন্য বিস্কুট কিনে বাড়ি ফেরার পথে সে নিখোঁজ হন।

স্বজনরা জানায়, নিখোঁজ হওয়ার পর তমিজ উদ্দিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় সবাই চিন্তিত হয়ে পড়ে। রাতভর ব্যাপক খোঁজাখুঁজির পরও তাঁকে কোথাও পাওয়া যায়নি। গতকাল সকাল ৭টার দিকে ওই গ্রামের কৃষক ওয়ালি উল্লাহ পাশের ক্ষেতে ধান কাটতে গিয়ে কীর্ত্তুনিয়া ঈদগা মাঠের উত্তর পাশে বানার বিলের পাড়ে পানিতে নিখোঁজ তমিজ উদ্দিনের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন।
কাপাসিয়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) দুলাল আহমেদ জানান, সুরতহালকালে দীর্ঘপথ টেনেহেঁচড়ে মৃতদেহ নেওয়ার আলামত পাওয়া গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, খুনিরা তাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর বিলের পাড়ে মৃতদেহ ফেলে গেছে ।

তমিজ উদ্দিনের বড় ভাই মুজিবুর রহমান জানান, হত্যার পর খুনিরা তাঁর ছোট ভাইয়ের সাথে থাকা একটি মোবাইল ফোন ও টর্চলাইট টি নিয়ে গেছে। তবে পরিহিত লুঙ্গিতে কোমড়ে পেঁচানো ১ হাজার ৯’শ টাকা নেয়নি খুনিরা। তিনি অভিযোগ করেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে তাঁর ছোট ভাইকে অপহরণের পর হত্যা করে বাড়ি থেকে প্রায় ৪০০গজ দূরে মৃতদেহ ফেলে গেছে। তমিজ উদ্দিনের স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে।

কাপাসিয়া থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) আহসান উল্লাহ বলেন, ‘হত্যাকান্ড রহস্য উদঘাটনে জোর তদন্ত চলছে। আশা করছি, খুব দ্রুত খুনিরা ধরা পড়বে।’ অপমৃত্যু মামলা হয়েছে, ময়না তদন্ত রিপোর্ট পেয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানা যায়।


অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ