ঢাকা, শুক্রবার 16 November 2018, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

এনায়েতপুরের জামায়াত কর্মী ওয়ারেছ আলীর হত্যাকারী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে

সিরাজগঞ্জ ও চৌহালী সংবাদদাতা: নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংবিধানে পূর্নবহাল ও জামায়াতসহ জোটের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর দেশব্যাপী ১৮ দলের ডাকা অবরোধ কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানা জামায়াতের উদ্যোগে মন্ডলপাড়া মোড়ে ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচী পালিত হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, অবরোধ পালন শেষে বাড়ি ফেরার পথে থানা সংলগ্ন সোনালী ব্যাংকের সামনে পুলিশের উপস্থিতিতে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা করে। তারা রড, হকিষ্টিক ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারীভাবে আঘাত করে এতে জামায়াত কর্মী ওয়ারেছ আলী (৬৫) শাহাদত বরণ করেন।
এর প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে দলমত নির্বিশেষে এলাকার হাজার হাজার জনতা। এ ঘটনায় মামলা দায়ের এবং দুই বছর পার হলেও গ্রেফতার করা হয়নি, বরং তারা প্রকাশ্যে প্রশাসনের নাকে ডগায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। উল্টো সন্ত্রাসীরা শহীদের পরিবার ও স্থানীয় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের মামলা তুলে নিতে দিয়ে আসছে নানা রকম হুমকি। এদিকে হত্যার ঘটনায় ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায় এখনও অপেক্ষ করছে শহীদের স্বজন ও সহকর্মীরা।
এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. এ কে আজাদ চৌধুরী বলেন, ওয়ারেছ আলী একজন নম্র, ভদ্র ও নিরঅহংকারী সাদা মনের মানুষকে কেন জালিমেরা হত্যা করল । কি অপরাধ তার। তিনি তো কোন অন্যায় কর্মসূচি পালন করতে যাননি। কেন তাকে হত্যা করল সন্ত্রাসীরা।
আমরা জালিম সরকারের সন্ত্রাসী বাহিনী ও সহযোগি পুলিশ সদস্যদের বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।
শহীদের মেঝ ছেলে সাইফুল ইসলাম খুনিদের দ্রুত গ্রেফতার করে তাদের ফাঁসি নিশ্চিত করার জোর দাবি জানান।
এব্যাপারে এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলামের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী ওয়ারেস আলী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।
এদিকে শহীদ ওয়ারেছ আলীর শাহাদাতের এক বছরপূর্তিতে আজ মঙ্গলবার এনায়েতপুর থানা জামায়াতের পক্ষ থেকে আলোচনা ও স্বরণসভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ