ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 December 2014 ২৭ অগ্রহায়ন ১৪২১, ১৭ সফর ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

ছেলে সন্তান জন্ম দেয়ায় গৃহবধূকে যৌনপল্লীতে প্রেরণ

সংগ্রাম ডেস্ক : পর পর তিনবার ছেলে সন্তানের জন্ম দেয়ায় কলকাতার এক গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন জোর করে রেখে এসেছিল সোনাগাছির যৌনপল্লীতে। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করার পর পুলিশ এখন এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।
এই গৃহবধূ অভিযোগ করছেন, শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার গর্ভে মেয়ে সন্তান হবে বলে আশা করেছিলেন। তারা চেয়েছিলেন মেয়ে সন্তান বড় হলে তাদের যৌন পেশায় নিয়োজিত করে উপার্জন করা যাবে। কিন্তু তৃতীয়বারও ছেলে সন্তানের জন্ম হওয়ায় তারা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে যৌনপল্লীতে রেখে আসে।
কোলকাতার পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা দুর্বার মহিলা সমন্বয় সমিতি এবং উদ্ধার পাওয়া গৃহবধূর কাছ থেকে এই চাঞ্চল্যকর কাহিনী জানা গেছে।
কলকাতায় বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা বলেন, ৩০ বছর বয়সী তিন সন্তানের জননী এই মহিলা জানিয়েছেন, তার শাশুড়ি এবং ননদসহ শ্বশুরবাড়ির অন্তত পাঁচজন মহিলা যৌন পেশায় জড়িত। তবে বিয়ের আগে পর্যন্ত এই বিষয়টি স্বামী তার কাছে গোপন রেখেছিলেন। তাদের আদি বাড়ি মধ্যপ্রদেশের পান্না জেলায়। তবে বহু বছর ধরে কোলকাতাতেই থাকেন।
তিনি জানিয়েছেন, পর পর ছেলে সন্তানের জন্ম দিতে থাকায় শ্বশুর বাড়িতে তাকে নানা রকম নির্যাতন-লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়। তের মাস আগে তৃতীয় বার ছেলে সন্তান হওয়ার পর এর মাত্রা আরো বেড়ে যায়।
কয়েকদিন আগে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে জোর করে কোলকাতার যৌনপল্লী সোনাগাছিতে রেখে আসে। সেখান থেকেই দুর্বার মহিলা সমিতি তাকে উদ্ধার করে।
ভারতে ছেলে সন্তানের আশায় বধু নির্যাতনের ঘটনা অহরহই ঘটে। অনেক পরিবারেই মেয়ে শিশুকে অবাঞ্ছিত হিসেবে দেখা হয়। কিন্তু ছেলে সন্তান জন্ম দেয়ায় নির্যাতিত হওয়ার এই ঘটনা একেবারেই অভিনব। সূত্র: বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ