ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 December 2014 ২৭ অগ্রহায়ন ১৪২১, ১৭ সফর ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

লুৎফর রহমান বাদল আজীবন টিটু পাঁচ বছর ও রুবেল তিন বছর নিষিদ্ধ

স্পোর্টস রিপোর্টার : দুঃখ প্রকাশ করেও রেহাই পেলেন না লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাদল। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ও বিসিবি কর্মকর্তাদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাদলকে ক্রিকেটের সব ধরনের কর্মকান্ড থেকে আজীবন নিষিদ্ধ করেছে বিসিবি ডিসিপ্লিনারি কমিটি। এছাড়াও একই ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক তরিকুল ইসলাম টিটুকে পাঁচ বছর এবং অপর কর্মকর্তা সাব্বির আহমেদ রুবেলকে তিন বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটির গত মঙ্গলবার রাতের সভা শেষে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি মিডিয়াকে জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাদল সম্প্রতি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতিসহ নির্বাচিত পর্ষদ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সম্পর্কে অশালীন, আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন এবং মিথ্যা-ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়েছেন। তার এসব মন্তব্য দেশ ও বিদেশে বাংলাদেশের ক্রিকেট এবং ক্রিকেট বোর্ডের ভাবমূর্তি দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। তাই বিসিবির অধীনস্থ সব ধরনের ক্রিকেট কার্যক্রম থেকে লুৎফর রহমান বাদলকে আজীবন নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’ রূপগঞ্জের অন্য দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা ম্যাচ চলার সময় আম্পায়ারদের ভয়ভীতি দেখিয়েছেন।
এর আগে গত মঙ্গলবার এই ইস্যুতে সিসিডিএমের (ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিস) সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেখানে লুৎফর রহমান বাদল ও তারিকুল ইসলাম টিটুকে লিগ থেকে সাময়িক নিষিদ্ধ করেছিল সিসিডিএম। সিসিডিএমের সদস্য সচিব রাকিব হায়দার জানান, বোর্ড প্রেসিডেন্ট ও পরিচালকদের নিয়ে অশালীন মন্তব্য করার অপরাধে ওই দুজনকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাবও আনা হয়েছে। সিসিডিএমের সভার সিদ্ধান্ত রাতেই বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটিকে জানানো হয়েছে। মূলত বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটিই এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিবে। সিসিডিএমের সিদ্ধান্ত জানার পরই কোনো কালক্ষেপণ করেনি বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটির সদস্যরা। বিস্ময়করভাবে রাতেই বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটির সভা বসে এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। উল্লেখ্য, বিসিবির সভাপতির কঠোর মনোভাব এর আগেই বুঝতে পেরেছিলেন বাদল। তাই তো আকস্মিকভাবে একইদিন বিসিবি সভাপতির কাছে দুঃখ প্রকাশ করে চিঠি দিয়েছিলেন। একই চিঠির কপি সংবাদ মাধ্যমকেও দিয়েছিলেন। বিসিবি সভাপতির উদ্দেশ্যে লেখা চিঠিতে লুৎফর রহমান লেখেন, ‘চলতি প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে আমার দল লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ মাঠে ও মাঠের বাইরের নানা ধরনের বৈষম্যের শিকার হওয়ায় গত ৪ ডিসেম্বর বিকেএসপিতে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ শেষে আমি তাৎক্ষণিক উত্তেজনায় আবেগপ্রবণ হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বেশ কিছু মন্তব্য করেছি ও প্রতিক্রিয়া জানিয়েছি। এতে যদি ক্রিকেটাঙ্গনের কেউ দুঃখ ও কষ্ট পেয়ে থাকেন, তবে আমি সেদিনের আবেগপ্রবণ মন্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। আশা করছি, আমার এই দুঃখ প্রকাশের মধ্য দিয়ে ক্রিকেটাঙ্গনে চলতি সব ধরনের উত্তেজনা ও ব্যক্তিকেন্দ্রিক বিদ্বেষের অবসান ঘটবে। তবে বিসিবি ডিসিপ্লিনারি কমিটি কর্তৃক শাস্তি ঘোষণার পর এ ব্যাপারে লুৎফর রহমান বাদল ও তার সহযোগীরা কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ