ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 December 2014 ২৭ অগ্রহায়ন ১৪২১, ১৭ সফর ১৪৩৬ হিজরী
Online Edition

ওয়ানডের শীর্ষে ফিরল অস্ট্রেলিয়া

মোহাম্মদ জাফর ইকবাল : প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা। শীর্ষস্থান ভাগিয়ে নেয়ার টার্গেট আগে থেকেই ছিল; যার ইঙ্গিতও দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। শেষ ওয়ানডের আগেরদিন স্টিভেন স্মিথ বলেছিলেন, ৪-১ এ সিরিজ জয়ের পাশাপাশি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে ফিরতে পারলে সেটি হবে সত্যি দারুণ। সে লক্ষ্যেই তারা মাঠে নামবে। শেষ পর্যন্ত তার কথাই সত্যি হয়েছে। তবে কাজটি দারুণভাবে শেষ হয়নি। ঘরের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে অনেকটা হারতে হারতে ২ উইকেটের নাটকীয় জয় পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচে ৬ উইকেটে ২৮০ রানের ফাইটিং স্কোর গড়ে অতিথি প্রোটিয়ারা। বৃষ্টির জন্য স্বাগতিকদের সামনে ৪৮ ওভারে ২৭৫ রানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়। ৮ উইকেট হারিয়ে শেষ ওভারের প্রথম বলে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া।
হারলেও সেঞ্চুরির (১০৭) জন্য ম্যাচসেরার সান্ত¡নার পুরস্কার ওঠে কুইন্টন ডি ককের হাতে। ১ সেঞ্চুরি ও ২ হাফ সেঞ্চুরিতে ৮৫ গড়ে ২৫৪ রান করে সিরিজসেরা অসি তরুণ স্টিভেন স্মিথ। সিডনিতে টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক হাশিম আমলা। অস্ট্রেলিয়াকে ১ নম্বরে ওঠার দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার ভারপ্রাপ্ত সেনাপতি অবশ্য ব্যাট হাতে খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি।
১৮ রানে সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপরই ডি কক ও রাইলি রোজাউর মধ্যে গড়ে ওঠে চমৎকার জুটি। দ্বিতীয় উইকেটে ২১ ওভারে ১০৭ রান যোগ করেন তারা। ১২৩ বলে ১৪ চারের সাহায্যে ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি তুলে নেন তরুণ এ ওপেনার। দ্রুতই ফাফ ডু প্লেসিস (২) ও ডেভিড মিলারকে (৫) হারিয়ে চাপে পড়ে প্রোটিয়ারা। তবে ৬১ বলে ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৬৩ রানের ইনিংস খেলে দলকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যান ফারহান বিহারদিয়ান।
২৮০ রানে থামে তাদের ইনিংস। জবাবে দলীয় ৩৭ রানে প্রথম উইকেট হারালেও অস্ট্রেলিয়াকে রেসে রাখেন অ্যারন ফিঞ্চ, শেন ওয়াটসন ও স্টিভেন স্মিথ। তিনজনই তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি। ফিঞ্চ ৬৭ বলে ৭৬, ওয়াটসন ৯৩ বলে ৮২ ও স্মিথ ৭৪ বলে ৬৭ রান করে আউট হন। রবিনের করা শেষ ওভারের প্রথম বলে চার মেরে দলকে নাটকীয় জয় এনে দেন ৬ রানে অপরাজিত থাকা ফাকনার! ৪-১ এ সিরিজ জয়ে ১১৭ রোটিং পয়েন্ট নিয়ে ভারতকে পেছনে ঠেলে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে উঠে আসে অস্ট্রেলিয়া। ভারতেরও রেটিং সামান, তবে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা অসিদের চেয়ে ১৯ ওয়ানডে বেশি খেলে।
এক সময় টেস্ট-ওয়ানডে দুই ঘরানার ক্রিকেটেই আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানটাকে পৈতৃক সম্পতি বানিয়ে ফেলেছিল অস্ট্রেলিয়া। মাঝে সময়টা ভালো কাটেনি। কিন্তু ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ সামনে রেখে ফের ঘুরে দাঁড়িয়েছে কুলীন অজিরা। প্রবল প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪-১ এ হারিয়ে জর্জ বেইলির দল দেশকে আবারো শীর্ষে নিয়ে গেছে। ‘আমরা অস্ট্রেলীয়রা ক্রিকেট নিয়ে গর্ববোধ করি। লক্ষ্য প্রতিটি ভার্সনে র‌্যাঙ্কিংয়ের ১ নম্বরে জায়গা করে নেয়া। ঘরের মাটিতে দেশবাসীকে বিশ্বকাপ ট্রফি উপহার দেয়া। দক্ষিণ আফ্রিকা যদিও শক্তিধর প্রতিপক্ষ, তবে সিরিজের ফল ৪-১ করে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থান ফিরে পেতে তৈরি আমরা।’ কথাগুলো বলেছেন অজি তরুণ স্টিভেন স্মিথ। আপাতদৃষ্টে মনে হতে পারে, স্মিথের কথায় কান দেয়ার কি আছে! তবে ভুল করবেন। ব্যাট হাতে অবিশ্বাস্য রকমের ছন্দে রয়েছেন ২৫ বছর বয়সী ডানহাতি ব্যাটসম্যান। মেলবোর্নে আগের ম্যাচে তো একাই জিতিয়েছেন দলকে। ২৬৭ রানের জবাবে একপর্যায়ে ৯৮ রানে ৫ উইকেট হারায় অজিরা। তবু ম্যাচটা তারা জিতে নেয় ৩ উইকেট ও ১ ওভার হাতে রেখে! ১১২ বলে ১০৪ রানের ড্যাশিং ইনিংস খেলে নায়ক স্মিথ! ক্যানবেরায় তৃতীয় ম্যাচেও ৫৫ বলে অপরাজিত ৭৩ রান করে জয়ের নায়ক ছিলেন স্মিথ! ওই স্মিথই যখন বলেন, ৪-১ এ জিতে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানে ফিরতে চাই, তখন তুড়ি মেড়ে উড়িয়ে দেয়ার উপায় নেই। কথা রেখেছেন স্মিথ। খেলেছেন ৭৪ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস।
আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি-মার্চে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে শুরু হবে বিশ্বকাপ। ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ সামনে রেখে দেশটির এই অর্জনে গোটা দলই এখন উজ্জীবিত। ভালো ফর্মে আছেন ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চও। ব্যাট হাতে অধিনায়ক বেইলি যথারীতি দুর্বার। দীর্ঘদিন পর আবারো ওয়ানডেতে শীর্ষে উঠার আনন্দটাকে কাজে লাগাতে চায় স্বাগতিকরা। ওয়ানডেতে শীর্ষস্থান ফিরে পাবার পর আনন্দে নেই অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা।
তাদেরই সতীর্থ ফিল হিউজের মাথায় বলের আঘাত লেগে মারা যাবার ঘটনায় শোকে স্তব্ধ পুরো দেশ। এই শোক কাটিয়ে উঠতে তাদের কিছুটা সময় লাগবে। তাইতো ভারত-অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট ম্যাচের সময় সূচিতে পরিবর্তন এসেছে। হিউজের মৃত্যুর পর ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চিফ একজিকিউটিভ জেমস সাদারল্যান্ড বলেছেন, ক্রিকেটাররা যে এখনও টেস্ট খেলার মানসিকতায় নেই। এরই মধ্যে ভারত-অস্ট্রেলিয়ার পরিবর্তি টেস্ট সূচি প্রকাশ করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ব্রিসবেনের পরিবর্তে ৯ ডিসেম্বর থেকে অ্যাডিলেডে সিরিজের প্রথম টেস্ট। মাথায় বল লেগে ফিল হিউজের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর পর বেশ কয়েকদিন কেটে গেলেও শোক কাটেনি ক্রিকেটবিশ্বের। গেল বুধবার ম্যাকসভিলে শেষকৃত্য হয়েছে অজি টেস্ট ওপেনারের। হিউজের শেষকৃত্যে ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার কর্তাদের পাশাপাশি ছিলেন জাতীয় দলে তার সতীর্থরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ