ঢাকা, সোমবার 19 November 2018, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

পাটের জীবন রহস্য উন্মোচনকারী বিজ্ঞানী মাকসুদুল আলমের ইন্তেকাল

পাটের জীবন রহস্য উন্মোচনকারী বিজ্ঞানী মাকসুদুল আলম শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের হাইওয়াইয়ের কুইন্স মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
মাকসুদুল আলম যকৃতের জটিলতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬০ বছর।
বিজ্ঞানী মাকসুদুল আলমের অকাল মৃত্যু বাংলাদেশের জন্য এবং বিজ্ঞান শিক্ষা ও গবেষণা বিশেষ করে শস্য বিচিত্রকরণের ক্ষেত্রে এক বিরাট ক্ষতি। তার মৃত্যু জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।
মাকসুদুল আলম ১৯৫৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর ফরিদপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা দলিলউদ্দিন আহমেদ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসের (ইপিআর) একজন কর্মকর্তা এবং তার মা লিরিয়ান আহমেদ একজন সমাজকর্মী ও শিক্ষিকা ছিলেন।
১৯৭১ সালে দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে তার পিতা শহীদ হন। স্বাধীনতার পর তিনি রাশিয়ায় চলে যান। সেখানে মস্কো রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮২ সালে অণুপ্রাণবিজ্ঞানে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে জার্মানীতে বিখ্যাত ম্যাক্স প্ল্যাংক ইনস্টিটিউট থেকে ১৯৮৭ সালে প্রাণ-রসায়নে পুনরায় পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।
বাংলাদেশের সোনালী আঁশ খ্যাত পাটের জিন আবিষ্কার করে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেন এই বিজ্ঞানী। ড. মাকসুদুল সর্বশেষ হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়ে মেরিন বাই প্রোডাক্ট ইঞ্জিনিয়ারিং সেন্টারে সহকারি পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
তার মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ এমপি, জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বি মিয়া, চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
ড. মাকসুদুল আলম ছিলেন একজন বাংলাদেশী জিন তত্ত্ববিদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ডাটাসফটের একদল উদ্যমী গবেষকের যৌথ প্রচেষ্টায় ২০১০ সালের মাঝামাঝি সময়ে সফলভাবে উন্মোচিত হয় পাটের জিন নকশা। এ বছরেরই ১০ জুন সরকারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পাটের জিনোম সিকোয়েন্স আবিষ্কারের ঘোষণা দেয়া হয়। অসামান্য অবদানের জন্য মানুষের কাছে তিনি আজীবন স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।
মাকসুদুল আলমকে যুক্তরাষ্ট্রে দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সূত্র জানায়। বাসস

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ