ঢাকা,বুধবার 14 November 2018, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

এবার সময়মতো বই পাচ্ছে না খুদে শিক্ষার্থীরা

সংসদ রিপোর্টার: প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পাঠ্যবই পাওয়ার সুযোগ মিললেও প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার্থীরা এবার সময়মতো বই পাবে না। প্রেসে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়ায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। তবে আগামী ১০ জানুয়ারির মধ্যে বই পৌছানোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রণালয়।
জাতীয় সংসদে আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত এ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ তথ্য জানানো হলে উদ্বেগ প্রকাশ করেন কমিটির সদস্যরা। তারা অতিদ্রুত এবিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে তাগিদ দেন।
কমিটির সভাপতি মো. মোতাহার হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান, আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, মো. নজরুল ইসলাম বাবু, মো. আবুল কালাম, আলী আজম, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, উম্মে রাজিয়া কাজল অংশ নেন। মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য আ খ ম  জাহাঙ্গীর হোসাইন সাংবাদিকদের জানান, ইতিমধ্যে উপজেলা পর্যায়ে ৯০ শতাংশ বই পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বাকী ১০ শতাংশও ১ জানুয়ারির আগেই পৌছে যাবে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আস্বস্ত করেছেন। তিনি বলেন, প্রাথমিকের বই সময়মতো পৌঁছাতে পারলেও প্রাক-প্রাথমিকের বই পৌছানো একটু কঠিন হয়ে যাবে। কারণ প্রেসে একটু ঝামেলা হয়েছে। তাই তারা বলেছে প্রাক-প্রাথমিকের বই ১০ জানুয়ারির মধ্যে পৌছানো সম্পন্ন হবে।
তবে এতে কোনে ঝামেলা হবে না বলে জানিয়েছেন কমিটির এ সদস্য। তিনি বলেন, প্রাক-প্রাথমিকের ভর্তি শুরু হয় ১ জানুয়ারি থেকে চলে ৩১ মার্চ পর্যন্ত। তাই এসব খুদে শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছাতে একটু সময় লাগলেও ঝামেলা হবে না। তারপরও কমিটি ১ জানুয়ারির মধ্যেই বই পৌছে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে।
এদিকে প্রতি বছরের মতো এবারও ৩১ ডিসেম্বর বই উৎসব করবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ উপলক্ষে প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। প্রতি বছর দেশের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের হাতে এক সেট বই তুলে দিয়ে এ বই উৎসবের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।  এবারও তাই করা হবে বলে জানা গেছে।
সংসদ সচিবালয় সূত্র জানায়, বৈঠকে কমিটি বিদ্যালয়বিহীন এলাকায় ১৫০০ প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের আওতায় বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় জায়গা দিতে দাতা পাওয়া না গেলে সরকার কর্তৃক জায়গা অধিগ্রহণের সুপারিশ করেছে। এছাড়া নতুন জাতীয়করণকৃত যেসব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এখন পর্যন্ত বেতন পায়নি অবিলম্বে তাদের বেতন প্রদানেরর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে কমিটি। জানুয়ারির মধ্যে যেন এসব শিক্ষকরা বেতন পান তার সু-ব্যবস্থা করতে মন্ত্রণালয়কে তাগিদ দিয়েছেন কমিটি সদস্যরা।
জাতীয় করণকৃত শিক্ষকদের বেতন প্রসঙ্গে আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ইতিমধ্যে ৯০/৯২ হাজার শিক্ষকের বেতন দেয়া হয়েছে। বাকী যে ১০/১২ হাজার শিক্ষক আছেন তারা যেন জানুয়ারির মধ্যে বেতন পায় সে ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়েছে।               


অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ