ঢাকা, মঙ্গলবার 25 September 2018, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে অস্ত্র ব্যবসার কথা স্বীকার করলেন ধনকুবের মুসা

স্টাফ রিপোর্টার: অবশেষে বাংলাদেশের আলোচিত ব্যবসায়ী ধনকুবের মুসা বিন শমসের তার আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসার কথা স্বীকার করেছেন। তবে তিনি এই ব্যবসার বৈধতার লাইসেন্স বা কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক)। আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সংস্থাটির কমিশনার মো. সাহাবুদ্দিন চুপ্পুর কাছে মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে দুদক কমিশনার বলেন, মুসা বিন শমসেরের জীবন-যাপন, আচার-আচরণ সব কিছুই অস্বাভাবিক ও রহস্যজনক। সুইস ব্যাংকে ৫১ হাজার কোটি টাকা জব্দ করার তথ্যসহ অনেক তথ্যই আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম ‘বিজনেস এশিয়া’র মাধ্যমে পাই। এর পরপরই আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিই।
দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে ‘প্রিন্স মুসা’ নামে পরিচিত এই ব্যবসায়ী তার সব অর্জনকেই বৈধ বলে দাবি করেছেন বলে উল্লেখ করে সাহাবুদ্দিন চুপ্পু জানান, মুসা তার অস্ত্র ব্যবসার কথা স্বীকার করেছেন। তবে তার অস্ত্র ব্যবসার বৈধতা প্রমাণে এ সংক্রান্ত কোনো লাইসেন্স বা সহায়ক কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। বরং উল্টো দুদক কর্মকর্তাদের তিনি বলেন, ‘অস্ত্র ব্যবসার বিষয়টি অতি গোপনীয়’। একথা বলে এ ব্যাপারে আর কিছু বলতেও রাজি হননি তিনি। ‘তবে তাকে দুদকের কাছে অবশ্যই তথ্য প্রকাশ করতে হবে। প্রয়োজনে তাকে আবারও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানান চুপ্পু।
বিদেশি গণ মাধ্যমের তথ্যমতে, বিশ্বের শীর্ষ ১০ অস্ত্র চোরাচালানকারীর একজন এই  মুসা বিন শমসের। গত ১৮ ডিসেম্বর মুসা বিন শমসেরকে জিজ্ঞসাবাদ করে দুদক। জিজ্ঞাসাবাদে প্রিন্স মুসা তার সব উপার্জনকে ‘বিদেশ থেকে অর্জন এবং সব কিছু বৈধ’ বলে দাবি করেন। প্রায় বছর কুড়ি আগে ব্রিটিশ লেবার পার্টিকে ১০ লাখ পাউন্ডের বেশি নির্বাচনী চাঁদা দিতে চেয়েছিলেন মুসা। কিন্তু তার এই প্রস্তাবে সায় দেয়নি দলটি। এরপর দেশবিদেশে আলোচনার ঝড় তোলেন মুসা ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ