ঢাকা, বুধবার 19 September 2018, ৪ আশ্বিন ১৪২৫, ৮ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিতর্কিত ছবি দিয়েই শার্লির নতুন সংখ্যা, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

কার্যালয়ে হামলার এক সপ্তাহ পর নতুন সংখ্যা প্রকাশ করেছে ফ্রান্সের শার্লি এবদু পত্রিকা। বিদ্রূপাত্মক পত্রিকাটি তাদের এবারের প্রচ্ছদে মহানবী (সা.)-এর কার্টুন প্রকাশ করেছে। এ নিয়ে বিশ্বব্যাপী নানা ধরনের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে।

সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনটি বুধবার ৩০ লাখ কপি ছাপা হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার পত্রিকাটির প্রচ্ছদের ছবি দিয়ে খবর প্রকাশ করে ফরাসী দৈনিক লিবারেশন।

প্যারিসে অবস্থিত শার্লি এবদুর কার্যালয়ে গত বুধবার হামলা চালায় দুই বন্দুকধারী। ২০১১ সালে মহানবী (সা.)-কে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশের কারণে চালানো ওই হামলায় পত্রিকাটির সম্পাদক ও চার কার্টুনিস্টসহ মোট ১২ জন নিহত হয়।

ওই হামলার ঘটনার প্রতিবাদে আবারও মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কার্টুন প্রকাশ করল পত্রিকাটি। এবারের কার্টুনে ‘আই এ্যাম শার্লি’ স্লোগান নিয়ে মহানবী (সা.)-এর গাল বেয়ে পানি পড়ার দৃশ্য দেখানো হয়েছে। উপরে লেখা রয়েছে, ‘অল ইজ ফরগিভেন’ (সব ক্ষমা করা হয়েছে)।

মহানবী (সা.)-কে অবমাননার অভিযোগে পত্রিকাটিতে হামলা চালানোর পর আবারও তাকে নিয়ে কার্টুন প্রকাশের বিষয়ে নানা ধরনের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। অনেক সংবাদমাধ্যম ও ব্যক্তি একে বাকস্বাধীনতার বহিঃপ্রকাশ এবং প্রতিবাদ হিসেবে দেখলেও নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া প্রকাশকারীর সংখ্যা কম নয়।

প্রতিবাদের নামে নতুন করে আবারও মহানবী (সা.)-কে অবমাননা করে কার্টুন প্রকাশ করায় মুসলিম বিশ্বে সমালোচনার মুখে পড়েছে শার্লি এবদু। সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ম্যাগাজিনটির এ কাজের তীব্র সমালোচনা করেছেন অনেকে।

মিশিগানে অবস্থিত কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশনস’র নির্বাহী পরিচালক দাউদ ওয়ালিদ বলেছেন, নতুন করে মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কার্টুন প্রকাশ মুসলিমদের ক্রোধান্বিত করবে।

মধ্যপ্রাচ্যসহ অনেক মুসলিম দেশের সাধারণ নাগরিকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে শার্লি এবদুর এ পদক্ষেপকে ঘৃণ্য বলে উল্লেখ করেছেন।

ম্যাগাজিনে কার্টুন প্রকাশের বিষয়টিকে এড়িয়ে যাওয়ার পক্ষপাতিও কম নয়। অনেক মুসলিমই বিষয়টিকে পাত্তা না দেওয়ার কথা বলেছেন। এর মধ্যে ক্যালিফোর্নিয়ার বিখ্যাত চিন্তাবিদ ইমাম জায়েদ শাকিরও রয়েছেন।

মুসলিমদের ধর্মানুভূতিতে আঘাত দিয়ে প্রচ্ছদ ছাপানোর বিষয়ে নিজেদের মতামত প্রকাশ করা থেকে বিরত রয়েছে বিশ্বের অনেক নামকরা সংবাদমাধ্যম। এর মধ্যে বিবিসি, রয়টার্স, ইন্ডিপেনডেন্ট, গার্ডিয়ান অন্যতম। খবর: বিবিসি ও সিএনএনের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ