ঢাকা, শুক্রবার 16 November 2018, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সামরিক আদালতে বিচার হচ্ছে মুরসির

সংগ্রাম ডস্কে: মিসরে ক্ষমতাচ্যুত ইসলামপন্থী প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি এবং মুসলমি ব্রাদারহুডরে বশেকছিু সংখ্যক নেতা ও তার  সমর্থককে  বিচারের জন্য সামরিক আদালতে হস্তান্তর করছেে সরকারী কৌশলীরা । গত বছর সহিংসতা ঘটনোর অযুহাতে  তাদের আটক করা হয়।

আগামী ২৩ ফব্রেুয়ারী সামরকি আদালতে তাদরে বচিার শুরু হচ্ছে বলে গতকাল মঙ্গলবার আল-আহরাম পত্রকিা জানয়িছে।

 সাবেক সেনাপ্রধান ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি ২০১৩ সালে মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করেন। এরপর মুরসির সমর্থকরা রাজপথে নেমে আসে। তবে কর্তৃপক্ষের বিরামহীন অভিযানের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হন মুরসির অনুসারীরা। কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিচার বিভাগে হস্তক্ষেপ করার অভিযোগ রয়েছে। অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, দক্ষিণাঞ্চলের মিনা প্রদেশে তিন পুলিশের মৃত্যুর ঘটনায় বিচারের জন্য প্রথমে পর্যায়ে মুরসির ১৩৯ সমর্থককে বিভিন্ন সামরিক ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া দ্বিতীয় পর্যায়ে কায়রোর উত্তরাঞ্চলের দামানহুরে বেহেইরা প্রাদেশিক সরকারের সদর দফতরে অগ্নিসংযোগ এবং ইসলামপন্থী বিক্ষোভকারী ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষে ৫ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনায় ২৯৯ মুরসি সমর্থকের বিচার করা হবে। ২০১৩ সালের ১৪ আগস্ট কায়রোতে মুরসির সমর্থকদের দুটি অবস্থান সমাবেশের ওপর নিরাপত্তা বাহিনী অভিযান চালায়। এদিন সংঘর্ষে ৭০০র বেশি লোক নিহত হয়। এরপর সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। চলতি বছরের অক্টোবরে সিসি রাষ্ট্রীয় অবকাঠামোতে হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত বেসামরিক নাগরিকদের সামরিক আদালতে বিচার করা যাবে এ মর্মে একটি ডিক্রি জারি করেন। ২০১১ সালের অভ্যুত্থানে মুরসির পূর্বসূরি হোসনি মোবারকের পতনের পর থেকে সামরিক আদালতে হাজার হাজার বেসামরিক নাগরিকের বিচার করা হয়েছে। এএফপি।
-

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ