ঢাকা,বুধবার 14 November 2018, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

জামায়াত নেতা সেলিম উদ্দিনের পিতার ইন্তিকাল

সিলেট ব্যুরোঃ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য, ঢাকা মহানগরীর সহকারী সেক্রেটারী ও মো: সেলিম উদ্দিনের পিতা আব্দুল গফুর (৯৫) গত শুক্রবার রাত সোয়া ২ টায় বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তিকাল করেছেন। (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)।

বিয়ানীবাজার উপজেলার ১০ নং মুড়িয়া ইউনিয়নের পূর্ব মুড়িয়া আষ্টঘরী তার নিজ গ্রামে আজ শনিবার বেলা সোয়া ২ টায় আষ্টঘরী শাহী ঈদগাহ ময়দানে জানাজার নামাজ শেষে তাঁর পারিবারিক গোরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়। জানাজার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের ৪র্থ ছেলে মো: সেলিম উদ্দিন। মৃত্যুকালে তিনি ৫ ছেলে, ২ মেয়ে নাতি-নাতনী সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।

বিয়ানীবাজারের এই প্রবীণ মুরব্বীর ইন্তেকালের খবর শুনে মুড়িয়া ইউনিয়নসহ উপজেলায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা এই বিশিষ্ট সমাজসেবককে এক নজর দেখতে অষ্টঘরী গ্রামে ভিড় জমান। হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজার নামাজে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের নায়েবে আমীর অধ্যাপক আব্দুল হান্নান, লেবার পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাহবুবুর রহমান খালেদ, বিয়ানীবাজার পৌরসভা জামায়াতের আমীর মাওলানা ফয়জুল ইসলাম, বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মাস্টার আব্দুর রহিম, বিয়ানীবাজার পৌরসভা জামায়াতের আমীর মোস্তফা উদ্দিন, নায়েবে আমীর মাওলানা জমির হোসাইন, মুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবুল খয়ের, ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট জেলা পূর্ব সভাপতি এসএম মনোয়ার, মৌলভীবাজার জেলা সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সিলেট মহানগর শিবিরের সেক্রেটারী মাসুক আহমদ, মৌলভীবাজার পৌরসভা শিবির সভাপতি ফখরুল ইসলাম, জামায়াত নেতা মাওলানা মোফাসসির আহমদ ফয়েজী, মাওলানা আমীর হোসেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের সভাপতি এখলাছ উদ্দিন, সেক্রেটারী আব্দুল হামিদ প্রমুখ। শোকবানী জামায়াত নেতা মোহাম্মদ সেলিমউদ্দিনের পিতা আব্দুল গফুরের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রিয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী আমীর মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান। এক বিবৃতিতে তিনি মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান বলেন, শ্রদ্ধাভাজন মুরুব্বি আব্দুল গফুরের ইন্তেকালে আমরা আমাদের একজন প্রথম সাড়ির অভিভাবককে হারালাম। মহান রাব্বুল আলামীন যেন আমাদের এই অভিভাবককে তার প্রিয় বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত করে জান্নাতের সর্বোচ্চ মযাদায় অধিষ্ঠিত করেন, এই কামনা করছি। এদিকে আব্দুল গফুরের মৃত্যুতে এক যুক্ত বিবৃতিতে শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন সিলেট জেলা ও মহানগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ। বিবৃতি দাতারা হলেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি অধ্যক্ষ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট বিভাগীয় আঞ্চলিক দায়িত্বশীল অধ্যাপক ফজলুর রহমান, সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের আমীর মাওলানা হাবিবুর রহমান, নায়েবে আমীর অধ্যাপক আব্দুল হান্নান ও মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী নজরুল ইসলাম, সিলেট উত্তর জেলা জামায়াতের আমীর হাফিজ আনোয়ার হোসাইন খান, সেক্রেটারী ইসলাম উদ্দিন, সিলেট মহানগর জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর মো: ফখরুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী এডভোকেট আব্দুর রব, ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট মহানগর সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, সেক্রেটারী মাসুক আহমদ। যুক্ত বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ মরহুম আব্দুল গফুরকে একজন নির্বিবাদী ও সজ্জন ব্যক্তিত্ব আখ্যায়িত করে বলেন, তিনি মৃত্যুর পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে বিয়ানীবাজারবাসী একজন সমাজসেবক ও গুণী ব্যক্তিকে হারিয়েছে, যা সহজে পুরণ হওয়ার মতো নয়। আল্লাহ রাব্বুল আল আমীন যেন তাঁর নেক আমল কবুল করেন এবং তাঁকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসিব করেন। পাশাপাশি মরহুমের পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জানানো হয়। #

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ