ঢাকা, শুক্রবার 16 November 2018, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সব সম্পদ দান করছেন অ্যাপল নির্বাহী কুক

অনলাইন ডেস্ক : মানবকল্যাণে নিজের সব সম্পদ দান করার পরিকল্পনা করেছেন প্রযুক্তির জায়ান্ট অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক। দাতব্য কাজে মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের পদাঙ্ক অনুসরণ করলেন তিনিও।
   
কুক বলেছেন, আমার ১০ বছর বয়সী ভাইপোর পড়াশোনার খরচ বাদে বাকি সব সম্পদ মানবসেবার কাজে ব্যয় হবে।

বৃহস্পতিবার ফরচুন সাময়িকীতে প্রকাশিত খবরে এ তথ্য জানানো হয়।

টিম কুক বলেন, ‘আপনি জলাশয়ের সেই নুড়ি হতে চাইবেন, যা পরিবর্তনের জন্য তরঙ্গ সৃষ্টি করতে পারে।’

দাতব্য কাজে সম্পদ দান করার পরিকল্পনার কথা জানিয়ে কুক কোটিপতি প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের তালিকায় পড়ে গেলেন। মানবহিতৈষী হিসেবে এই তালিকার মধ্যে সবচেয়ে পরিচিত হচ্ছেন বিল গেটস ও তার স্ত্রী মেলিন্ডা গেটস। গেটস দম্পতি তিন হাজার ২০ কোটি মার্কিন ডলার বা তাদের মোট সম্পদের ৩৭ শতাংশ দান করেছেন।

ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ ১৫০ কোটি মার্কিন ডলার বা সম্পদের চার শতাংশ দাতব্য কাজে ব্যয় করেছেন। মানবহিতৈষী দাতা হিসেবে এই তালিকায় আরও আছেন গুগলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা সের্গেই ব্রিন, ইবের প্রতিষ্ঠাতা পিয়েরি ওমিডায়ার, ইনটেলের সহপ্রতিষ্ঠাতা গর্ডন মুর প্রমুখ।

কুককে বিত্তশালী ব্যক্তি বলা হলেও তিনি বিলিওনিয়ারদের তালিকার মধ্যে পড়েন না। অ্যাপলে তার মূল বার্ষিক বেতন হচ্ছে সাড়ে ১৭ লাখ মার্কিন ডলার। তার মূল সম্পদের পরিমাণ হচ্ছে ১২ কোটি মার্কিন ডলার।

দাতা হিসেবে ইতিমধ্যে সুনাম কুড়িয়েছেন অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক। দাতব্য কাজে ব্যয় করার দিক থেকে অ্যাপলের সহপ্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের চেয়ে তিনি এগিয়ে রয়েছেন। জবস প্রকাশ্যে দান করা পছন্দ করতেন না।

কিন্তু কুক কর্মীদের অ্যাপল পণ্যে বিশেষ ছাড়, প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাতব্য কর্মসূচি গ্রহণের মতো সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। স্ট্যানফোর্ড হাসপাতাল ও রোগ প্রতিরোধমূলক দাতব্য প্রতিষ্ঠান রেডকে ২০১২ সালে অর্থ সাহায্য করেছিলেন কুক।

স্টিভ জবস যখন অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী ছিলেন, তখন থেকে তার খুব ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত টিম কুক। স্টিভ জবস ক্যানসারে আক্রান্ত হলে যখন যকৃত প্রতিস্থাপন করার প্রয়োজন দেখা দেয়, তখন নিজের যকৃতের অংশবিশেষ দান করতে চেয়েছিলেন টিম কুক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ