ঢাকা, বুধবার 13 November 2019, ২৯ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

নেত্রকোনায় শিশু ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে দু’জনের মৃত্যুদণ্ড

অনলাইন ডেস্ক : জেলার বারহাট্টা উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে গলা কেটে হত্যার দায়ে দু’জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

২০১২ সালের ১৩ জুন উপজেলার অতিথপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে শাবনুর ওরফে ছুটনীকে হত্যার দায়ে মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) দুপুরে আসামিদের উপস্থিতিতে জেলা ও দায়রা জজ ড. এ কে এম আবুল কাশেম এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন-একই এলাকার সিরাজ মিয়ার ছেলে মো. আলী হোসেন (২৫) ও সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার হরিপুর গ্রামের মৃত আসন আলীর ছেলে মামুদ হোসেন মাবুদ।

মাবুদ ওই এলাকার এক বাড়িতে বাৎসরিক চুক্তিতে কৃষি শ্রমিকের কাজ করতেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন অতিথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছুটনী গরু আনতে বাড়ির সামনের মাঠে যায়। এসময় আলী হোসেন ও মাবুদ শিশুটিকে একা পেয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন।

এসময় ছুটনী বিষয়টি বাড়িতে বলে দেওয়ার কথা বললে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে কাছে থাকা ধারালো কাঁস্তে দিয়ে তাকে গলা কেটে হত্যা করেন। পরে তারা মৃতদেহ পাট ক্ষেতে ফেলে রেখে যান।

তার মৃতদেহ উদ্ধারের পর নিহতের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে বারহাট্টা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সন্দেহ ভাজন হিসেবে আলী হোসেন ও মাবুদকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করলে তারা ১৬৪ ধারায় ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

এরপর ১৭ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের পর সন্দেহাতীতভাবে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে বিচারক এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন পিপি গোলাম মোহাম্মদ খান পাঠান বিমল। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. সিরাজুল হক ও সামছুদ্দিন আহম্মেদ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ