ঢাকা, মঙ্গলবার 15 October 2019, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

পাকুন্দিয়ায় ১১শ পিস ইয়াবাসহ ১ জন আটক ॥ ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি : কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় গত সোমবার ভোর ৪টার দিকে পুলেরঘাট বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে ১১শ পিছ ইয়াবাসহ আমিন মিয়া (৪০) নামক এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃত ব্যক্তি কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার জালিয়াপাড়া গ্রামের মৃত আবুল হোসেন পুত্র। তবে এই ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার ভোর রাত ৪টার দিকে আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই মতিউর রহমান ও এএসআই নুকুল চন্দ্র ধরের নেতৃত্বে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়া পুলেরঘাট বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে ১১শ পিছ ইয়াবাসহ কক্সবাজারের টেকনাথ উপজেলার আমিন মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিষয়টি সংশ্লিষ্ট পাকুন্দিয়া থানাকে জানানোর কথা থাকলেও না জানিয়ে তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ  গোপনে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির সাথে দরকষাকষি করতে থাকেন।

ইয়াবা উদ্ধারের প্রায় ১৫ ঘন্টা পরে বিষয়টি পাকুন্দিয়া থানার ওসি গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারেন। পরে বিকাল ৪টা সময় ওসি (তদন্ত) শামুদ্দিনকে তিনি ঐ তদন্ত কেন্দ্রে পাঠান।

সেখানে গিয়ে হাজত খানায় দেখা মিলে গ্রেফতারকৃত আমিন মিয়ার। পরে ২৪০পিস ইয়াবাসহ তাকে পাঠানো হয় পাকুন্দিয়া থানায়।

সেখানে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আমিন মিয়া স্বীকার করে তার কাছ থেকে ১১শ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের কথা। পরে তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মতিউর রহমান  ১১শ পিছ ইয়াবা জব্দের কথা স্বীকার করেন।

এই ঘটনায় এএসআই নুকুল কুমার ধর বাদী হয়ে ১১শ পিছ ইয়াবা জব্দ দেখিয়ে একটি মামলা করেন।

দীর্ঘক্ষণ ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটকের কথা গোপন রাখায় পুরো প্রশাশন জুড়ে তোলপালের সৃষ্টি হয়েছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ