ঢাকা, বুধবার 26 September 2018, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

''টেলিযোগাযোগ খাতে অনিয়মের চিত্র ভয়াবহ''

বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানিয়েছেন, মোবাইল ফোনের সিম নিবন্ধনের ক্ষেত্রে তারা ব্যাপক অনিয়ম এবং জালিয়াতি দেখতে পেয়েছেন।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, কেবল একজনের পরিচয়পত্র ব্যবহার করেই ১৪ হাজারের বেশি সিম কার্ড নিবন্ধনের নজির পর্যন্ত তারা খুঁজে পেয়েছেন। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে, যে পরিচয়পত্র ব্যবহার করে সিমটি কেনা হয়েছে, সেই পরিচয়পত্রটি বানানো।

প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলছেন, জালিয়াতির মাধ্যমে নেয়া এসব মোবাইল নাম্বার থেকে তদ্বির, জঙ্গি কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন, রাহাজানি, মানব পাচার, নানা ধরণের অপরাধের ঘটনা ঘটছে।

এসব অপরাধ বন্ধ করে এই খাতটি একটি নিয়মনীতির মধ্যে সরকার আনতে চায় বলে প্রতিমন্ত্রী জানান। এই পদক্ষেপকে তিনি একটি শুদ্ধি অভিযান বলে বর্ণনা করেন।

বাংলাদেশের সব মোবাইল ফোনের সিম নিবন্ধন যাচাই-বাছাই এর যে কাজ এখন চলছে তা নিয়ে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী মঙ্গলবার ঢাকায় বৈঠক করেন সব মোবাইল ফোন অপারেটরের সঙ্গে।

অপারেটরদের সাথে বৈঠকের পর, এখন পর্যন্ত চালু থাকা মোট সিমের ৭.৬৫ শতাংশ তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। কিন্তু তাদের এই ভলিউম আরো বাড়ানোর জন্য সরকার নির্দেশ দিয়েছে।

তারানা হালিম বলছেন, ২০১২ সালের আগে যারা পরিচয় পত্র ছাড়াই সিম কিনেছেন, তাদের একটি বার্তা পাঠিয়ে পুনরায় নিবন্ধন করার জন্য বলা হবে। না হলে নির্ধারিত সময় পর সেটি বন্ধ হয়ে যাবে। এর মধ্যেই সরকার প্রচারণা চালাবে, যাতে সবাই নিজেদের সিমগুলো নিবন্ধন করে নেন।

ডিসেম্বর থেকে সিম নিবন্ধনের সঙ্গে আঙ্গুলের ছাপ নেয়া শুরু হবে। সেটি পরিচয়পত্রের সঙ্গে ঠিকভাবে মিললেই বোঝা যাবে যে, এটি সঠিকভাবে নিবন্ধিত।-বিবিসি বাংলা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ