ঢাকা, মঙ্গলবার 22 October 2019, ৭ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মাওলানা নিজামীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর নিয়ে আবারো কথা বললেন এরদোগান

তুরস্ক থেকে সংবাদদাতা : তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রেজেপ তাইয়েপ এরদোগান আবারো মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদন্ড কার্যকরের নিন্দা জানিয়েছে। গত ১৪ মে তুরস্কের কোজায়েলী শহরে আয়োজিত এক গণসমাবেশে  তিনি মাওলানা নিজামীর উচ্চ প্রশংসা করে বলেন, “মাওলানা নিজামীর বয়স ৭৩ বছর। ৪৫ বছর আগের ঘটনা তার উপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। তিনি একজন আলেম ও জ্ঞানী এবং একই সময় বিগত মন্ত্রীদের একজন ছিলেন। কি বলতেছি জানেনতো? অতিরিক্ত কথা বলার দরকার নেই। জালিমদের স্থান জাহান্নামেই হোক।”
তার এই বক্তব্যটি ভিডিওসহ প্রেসিডেন্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে দেয়া হয়েছে।
মুসলিম বিশ্বের প্রভাবশালী এ নেতা সমাবেশে উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, “বন্ধুরা, বাংলাদেশর ঘটনাতো আপনারা দেখছেন, তাই না? মতিউর রহমান নিজামীকে ৪৩ বছর পূর্বে (পাকিস্থান থেকে) পৃথক হওয়ার ঘটনার কারণে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে তাকে ফাঁসি দেয়া হয়েছে।” তিনি বলেন, বলেন, “এখন সেখানে তুরস্কের সিপিএইচ (কট্টর সেকুলারিস্ট পার্টি) এর মত একটি দল আছে। দু:খজনকভাবে তারা মতিউর রহমান নিজামীকে দেয়া প্রদত্ত রায়ের আলোকে ফাঁসি দিয়ে দিয়েছে।”
এ সময় তিনি নিজামীর ফাঁসির পর পশ্চিমা বিশ্বের নীরবতার কড়া সমালোচনা করে বলেন, “কেউ কথা বলছে কি? বলেনি। গনতন্ত্রে বিশ্বাসী দাবীদাররা কোন কথা বলেছে কি? বলেনি। কিন্তু পশ্চিমা বিশ্বে এমন কিছু হলে কেয়ামত ঘটে যেত।”
এরদোগান আরো বলেন, বাংলাদেশের ঘটনায় নিহত ব্যক্তি একজন মুসলমান ও একজন মুসলিম নেতা হওয়ার কারণে সবাই হাসছে। এবং সিরিয়ার ঘটনার মতই হাতে তালি দিচ্ছে। তুরস্কে মৃত্যুদন্ডের মত সাজা না থাকা স্বত্তেও আদালতের সিদ্ধান্তের আলোকে পরিচালিত আমাদের সন্ত্রাস বিরোধী অপারেশনের বিরোধীতা করে ওরা আমাদের মাথা নষ্ট করে দিচ্ছে। অথচ বাংলাদেশের এই গুরুত্বপূর্ন ঘটনাটি সবাই দেখেও না দেখার এবং শুনেও না শোনার ভান করছে।
পশ্চিমা বিশ্বের এমন পক্ষপা মূলক আচরণকে এরদোগান বিবেকহীন কাজ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, এরই নাম হচ্ছে বিবেকহীন অবিচার ও মুনাফিকি।




অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ