ঢাকা, বুধবার 21 November 2018, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিদায় ভিসিআর

অনলাইন ডেস্ক: একসময়ের জনপ্রিয় বিনোদনযন্ত্র ভিডিও ক্যাসেট রেকর্ডারের (ভিসিআর) যুগ শেষ হচ্ছে এ মাসেই। জাপানে চলতি মাসে শেষবারের মতো তৈরি হতে যাচ্ছে বিশ্বের সর্বশেষ ভিসিআর। জাপানের ওসাকাভিত্তিক ফুনাই ইলেকট্রিক গ্রুপ ভিসিআর উৎপাদন বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এর মধ্য দিয়েই একটি যুগের সমাপ্তি ঘটে গেল।
ফুনাই গ্রুপ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ভিসিআর তৈরির যন্ত্রাংশের স্বল্পতা আর চাহিদা কমে যাওয়ায় তারা ভিসিআর উৎপাদন বন্ধ করে দিচ্ছে।
ফুনাইয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ সালে বিশ্বজুড়ে মাত্র সাড়ে সাত লাখ ভিসিআর বিক্রি হয়েছে। কিন্তু আশি ও নব্বইয়ের দশকে ভিসিআরের চাহিদা ছিল ব্যাপক। ওই সময় লাখ লাখ ভিসিআর বিক্রি হয়েছে বিশ্বজুড়ে।
যুক্তরাষ্ট্রের কনজ্যুমার টেকনোলজি অ্যাসোসিয়েশনের গত বছরের ডিসেম্বরের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯৫ সালে বড়দিনের সবচেয়ে চাহিদাসম্পন্ন পণ্য ছিল ভিসিআর, ক্যামকর্ডার আর সিডি-রম কম্পিউটার ড্রাইভার।
জনপ্রিয় টিভি অনুষ্ঠানগুলো ভিসিআরে প্রোগ্রাম করা কঠিন হলেও আগে থেকে রেকর্ড করা টেপ চালানো বেশ সোজা ছিল। এক দশক আগে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ১৯৭৫ সালে ভিসিআর বাজারে আসার পর থেকে এর দাম চার অঙ্কের কোঠা থেকে ২০০ ডলারে নেমে আসে। ফিল্ম স্টুডিওগুলো ২০০৬ সালে ভিসিআরের জন্য টেপ তৈরি করা বন্ধ করে দেয়।
বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৩৩ বছর ধরে ভিসিআর তৈরি করছে ফুনাই। সত্তরের দশকে বাজারে আসার পর বর্তমান ডিভিডি প্রযুক্তির কল্যাণে এর চাহিদা শেষ হয়ে গেছে। গত বছরে বেটাম্যাক্স ভিডিও ক্যাসেট বিক্রি বন্ধ করে দেয় জাপানের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা সনি। এ টেপ চালাতে ভিসিআর লাগে।
তবে ভিসিআরের জন্য বেশি মানুষের আফসোস থাকবে না বলেই মনে করছেন প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা। যাঁরা আর্কাইভ হিসেবে কাজে লাগাতে চান, তাঁরা বাদে ভিসিআরের বিদায়ে কষ্ট পাবেন না আর কেউ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ