ঢাকা, শুক্রবার 21 September 2018, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চাঁদপুরে স্কুলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপর বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলা, আহত ৩০

অনলাইন ডেস্ক: চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার বলশীদ হাজী আকুব আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক অখিল চন্দ্র দেবনাথের ভাড়াকরা মাস্তান বাহিনীর হামলায় একই বিদ্যালয়ের প্রায় ৩০ শিক্ষক-শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। আহতদেরকে রোববার রাতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগিতায় শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেসক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার বিকেলে বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে হামলার ঘটনাটি ঘটে। এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে স্কুল ছুটি ঘোষণা করা হয়।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত বছরের ১৮ অক্টোবর নিজ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীদের সাথে অনৈতিক কাজের অভিযোগে ম্যানেজিং কমিটি প্রধান শিক্ষক অখিল চন্দ্র দেবনাথকে সাময়িক বরখাস্ত করে। কিছুদিন পূর্বে অখিল চন্দ্র দেবনাথ বোর্ড থেকে স্কুলে প্রধান শিক্ষক পদে যোগদানের সম্মতি নিয়ে যোগদানের চেষ্টা করেন।

এদিকে যোগদানের সংবাদ পেয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাস রুম থেকে বের হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। আর এ বিক্ষোভ চলা অবস্থায় ১৫-২০ জন বহিরাগত যুবক স্কুলে প্রবেশ করে শিক্ষার্থীদের উপর হামলা চালায়। এরপর তারা শিক্ষকদের কক্ষে গিয়ে ঐ বহিরাগতরা শিক্ষকদের বেদম মারধর করে।

এতে আহত হন বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক মাওঃ ছালাউদ্দিন, সহকারী শিক্ষক মোঃ নুরন্নবী, সিনিয়র শিক্ষক বিল্লা হোসেন, মোঃ রুহুল আমিন ও হরি কমল দাস।

আহত শিক্ষার্থীরা হলো : ৮ম শ্রেণির ছাত্রী শাহিদা আক্তার, তামান্না আক্তার নবম শ্রেণি, নুসরাত জাহান ৯ম শ্রেণি, আসমা বেলাল বিথি ৯ম শ্রেণি, নুসরাত জাহান ৯ম শ্রেণি, আকলিমা আক্তার ১০ম শ্রেণি, মাজহারুল ইসলাম ১০ম শ্রেণি ও সানজিদা সুলতানা ৯ম শ্রেণি।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপর হামলার সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সামিউল মাসুদ স্কুলে ছুটে যান। এরপর তাঁর গাড়ি দিয়ে আহতদের শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেস্কে নিয়ে যাওয়া হয়।

আহত শিক্ষক নুরন্নবী জানান, প্রধান শিক্ষক অখিল চন্দ্র দেবনাথ যোগদানের জন্যে স্কুলে আসেন। এর দু'এক মিনিটের মধ্যে শিক্ষার্থীরা ক্লাস রুম থেকে বের হয়ে বিক্ষোভ করে। এ সময় অখিল স্যার মুঠোফোনে কার সাথে যেন বলছিলেন আমি তো এসেছি তোরা কই? এরপরেই বহিরাগতরা বিদ্যালয়ে ঢুকে হামলা চালায়।

‘বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান জানান, হামলাকারীরা প্রধান শিক্ষকের লোক, তিনিই এ হামলা চালিয়েছেন। বহিরাগতরা শিক্ষকদের উপর হামলার সময় প্রধান শিক্ষক অখিল চন্দ্র দেবনাথ শিক্ষকদের সাথে ছিলেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সামিউল মাসুদ জানান, বিদ্যালয়ে এ ধরনের কর্মকাণ্ড দুঃখজনক। যথাযথ তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ঘটনায় জড়িতদের ভিডিও রয়েছে আর তা দেখে বহিরাগতদের সনাক্ত করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ