ঢাকা, রোববার 15 December 2019, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

শিরোপা হ্যাট্রিক করলেন বোল্ট, চলে গেলেন গ্রেটদের কাতারে

অনলাইন ডেস্ক: ১০০ মিটার স্প্রিন্টে টানা তৃতীয় অলিম্পিকে সোনা জিতে নিলেন উসাইন বোল্ট। গড়লেন ইতিহাস।

রিও অলিম্পিকের দশম দিনে সোমবার বাংলাদেশ সময় সকাল সাতটা ২৫ মিনিটে আসরের সবচেয়ে প্রতীক্ষিত ইভেন্টে জ্যামাইকার এই গতি দানবের বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি যুক্তরাষ্ট্রের জাস্টিন গ্যাটলিন।

অলিম্পিকের ট্র্যাকে ব্যক্তিগত ইভেন্টে এর আগে টানা তিনটি সোনা জিততে পারেনি কোনো অ্যাথলেট।

বোল্ট দৌড় শেষ করেন ৯.৮১ সেকেন্ডে। আবারও তার পেছনে থাকতে হলো লন্ডনে গত আসরে ব্রোঞ্জ জেতা গ্যাটলিনকে (৯.৮৯ সেকেন্ড)।

৯.৯১ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় হয়েছেন কানাডার অঁদ্রে দে গ্রাস। বেইজিংয়ে গত বছরের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ফিনিশিং অর্ডার এটাই ছিল।

১০০ মিটারে তিন বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অবশ্য তার বার্লিনে ২০০৯ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে গড়া বিশ্ব রেকর্ড ৯.৫৮ সেকেন্ডের ধারে কাছে আসতে পারেনি। তবে বোল্ট নিজের পুরো ফর্মে না থাকলেও তাকে হারানো প্রায় অসাধ্যই।

সেমি-ফাইনালে অনায়াসে দৌড়ে ৯.৮৬ সময় নিয়ে বোল্ট ফাইনালে ওঠায় বোঝা গিয়েছিল ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। ফাইনালে ধীর শুরুর পর ৭০ মিটার পর্যন্ত পিছিয়ে ছিলেন। তবে বড় বড় পদক্ষেপে শেষ দিকে ২০০৪ সালে এথেন্স অলিম্পিকে সোনাজয়ী গ্যাটলিনকে ছাড়িয়ে যান বিশ্বের দ্রুততম মানব।

সেই ১২ বছর আগে জেতা অলিম্পিক খেতাবটা পুনরুদ্ধার করা আর সুযোগ পাচ্ছেন না ৩৪ বছর বয়সী গ্যাটলিন। ডোপিংয়ের অভিযোগ দুইবার নিষিদ্ধ থাকার পর ফিরে এসে এই বয়সেও বোল্টকে চ্যালেঞ্জ জানানোর জন্য কৃতিত্ব প্রাপ্য তার; তা রিওর দর্শকরা যতই তাকে দুয়ো দিক।

অন্যদিকে বোল্ট মাঠে আসার পরই স্টেডিয়াম জুড়ে দর্শকদের মুখে কেবল তার নাম। গ্যাটলিন জিতলে ব্রাজিলের দর্শকদের আচরণে বিব্রতকর অবস্থাতেই পড়তে হতো আয়োজকদের।

ত্রিশ-তম জন্মদিনের মোটে এক সপ্তাহ আগেই বোল্ট নিজেকে নিয়ে গেলেন গ্রেটদের কাতারে।

দৌড় শেষ করার পর যখন পায়ের সোনালী রঙের জুতোজোড়া খুলে রেখে গ্যালারিতে গিয়ে ভক্তদের সাথে হাত মেলাচ্ছিলেন আর ছবি তুলছেন বোল্ট, তখন টিভি ধারাভাষ্যকারেরা বলছিলেন এখন থেকে উসাইন বোল্টের নাম উচ্চারিত হবে মোহাম্মদ আলী আর পেলের মতো গ্রেটদের সাথে।

জয় নিশ্চিত হবার পর নিজের বুকে আঙুল ঠুকে কি যেন দেখাচ্ছিলেন বোল্ট।

মিনিট পনের বাদে একটি টুইট করেন, যেখানে তিনি লেখেন, “জ্যামাইকা উঠে দাঁড়াও!!! এটা আমার মানুষদের জন্য”।

একনজরে বোল্ট

    পুরো নাম: উসাইন সেইন্ট লিও বোল্ট
    ডাক নাম: লাইটেনিং বোল্ট
    জন্ম: ২১শে অগাস্ট, ১৯৮৬
    জন্মস্থান: শেরউড কন্টেন্ট, জ্যামাইকা
    বাসস্থান: কিংস্টন, জ্যামাইকা
    উচ্চতা: সাড়ে ৬ ফুট
    ওজন: ৯৪ কেজি
    পিতা: ওয়েলেসলি বোল্ট
    মাতা: জেনিফার বোল্ট
    ভাই: সাদিকি বোল্ট
    বোন: শেরিন বোল্ট

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ