ঢাকা, বুধবার 26 September 2018, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বন্ধ হওয়া ঠেকানোর চেষ্টা করছে সিটিসেল

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশের প্রথম মোবাইল ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সিটিসেলের লাইসেন্স বাতিলের উদ্দেশ্যে আজ বিটিআরসি একটি নোটিশ দেবে বলে জানা যাচ্ছে।

সংস্থাটির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ জানিয়েছেন, এরপর কোম্পানিটির বরাদ্দকৃত স্পেকট্রাম বা তরঙ্গ বন্ধ করে দেয়া হবে।

সিটিসেলের সাত লাখের মতো গ্রাহককে এক সপ্তাহের মধ্যে অন্য কোন কোম্পানির সেবা নিতে বলা হয়েছে।

বিটিআরসি বলছে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা বকেয়া পরিশোধ করতে না পারায় সিটিসেলের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

কিন্তু যথেষ্ট সময় পাওয়া সত্ত্বেও সিটিসেল এটা ঠেকাতে পারল না কেন এমন প্রশ্নের জবাবে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মেহবুব চৌধুরী জানান, তারা সরকারকে তাদের সব সমস্যা বুঝিয়ে বলেছেন।

“কিছু সমস্যা হয়েছে ফ্রিকোয়েন্সি পুরোপুরি না পাওয়া কারণে। আশা করি সরকার আমাদের কথা বিবেচনা নেবেন। সিটিসেলকে বন্ধ করে কারও কোন লাভ হবেনা”।

মিস্টার চৌধুরী বলেছেন বিটিআরসি ও মন্ত্রণালয় একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে কিন্তু তারা শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত চেষ্টা করবেন।

“আশা করি সহৃদয়ে তারা দেখবেন এবং আমাদের কিছুটা সময় দেবেন”।

নতুন করে বিনিয়োগ ও ব্যবস্থাপনার কোন পরিকল্পনা সিটিসেলের আছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন তারা সেটাই সরকারকে জানিয়েছেন।

“নতুন বিনিয়োগকারীরা আসছেন। আমরা চাচ্ছি বর্তমান শেয়ার হোল্ডার ও ম্যানেজমেন্ট বিদায় নেবে এবং নতুনদের হাতে একে আমরা তুলে দিতে চাই”।

নতুন একজনের সাথে আলোচনাও হয়েছে এবং একটি সমঝোতা স্মারকও হয়েছে বলে জানান তিনি।

সিটিসেলের মালিকদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপির একজন নেতা, বন্ধের ক্ষেত্রে তার কোন প্রভাব পড়েছে কি-না জানতে চাইলে তিনি এমন সম্ভাবনা নাকচ করে দেন।

আর শেষ পর্যন্ত বন্ধ হয়েই গেলে কর্মীরা নিয়মানুযায়ী তাদের সব প্রাপ্য পাবেন বলে জানান মেহবুব চৌধুরী।
-বিবিসি বাংলা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ