ঢাকা, সোমবার 12 September 2016 ২৮ ভাদ্র ১৪২৩, ৯ জিলহজ্ব ১৪৩৭ হিজরী
Online Edition

কাবা শরিফে নতুন গিলাফ

স্টাফ রিপোর্টার : পবিত্র হজ্বের শুরুতে কাবা ঘরের গিলাফ পরিবর্তন করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তন করা হয়। প্রতিবছর (৯ জিলহজ) হজের দিন হাজিরা সব আরাফার ময়দানে থাকেন এবং মসজিদে হারামে মুসল্লির সংখ্যাও থাকে কম। এ সময়ই কাবায় চড়ানো হয় নতুন গিলাফ। সূত্র : আরব নিউজ।
এবার গিলাফ পরিবর্তনের কাজে নেতৃত্ব দিয়েছেন মসজিদুল হারামের তত্ত্বাবধায়করা। এ সময় সৌদী বাদশার প্রতিনিধি, মক্কার গবর্নর, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও আমন্ত্রিত বিশিষ্ট জনরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর নতুন গিলাফটি মক্কা শরিফের গবর্নর প্রিন্স খালেদ বিন ফায়সাল আল সৌদ কাবা শরিফের জন্য তৈরি নতুন গিলাফ মসজিদুল হারামের ইমাম শায়খ আবদুর রহমান আস সুদাইসসহ কাবা শরিফের সিনিয়র তত্ত্বাবধায়কদের কাছে হস্তান্তর করেছিলেন। যা গতকাল রোববার কাবা শরিফে চড়ানো হলো।
কাবা শরিফের দরজা ও বাইরের জন্য আলাদা আলাদা গিলাফ ব্যবহার করা হয়। গিলাফ দু’টোই মজবুত রেশমি কাপড় দিয়ে তৈরি। গিলাফের মোট পাঁচটি টুকরা বানানো হয়। চারটি টুকরা চারদিকে এবং পঞ্চম টুকরাটি দরজায় লাগানো হয়। টুকরাগুলো পরস্পর সেলাইযুক্ত।
কাবার গিলাফের প্রতিটি কাপড়ের জন্য প্রয়োজন হয় ৬৭০ কেজি রেশম, ১৫০ কেজি সোনা ও রূপার চিকন তার। ৪৭ থান সিল্কের কাপড় দিয়ে তৈরি করা হয় এই গিলাফ, মোট আয়তন ৬৫৮ বর্গমিটার। প্রতিটি থান ১ মিটার লম্বা, ৯৫ সেন্টিমিটার চওড়া। একটা আরেকটার সঙ্গে সেলাই করা।
প্রতিবছর দু’টি করে (একটি সতর্কতামূলক) গিলাফ তৈরি হয়। একটি হাতে তৈরি, বানাতে সময় লাগে আট-নয় মাস। অন্যটি মেশিনে মাত্র এক মাসে তৈরি করা হয়। পুরনো গিলাফটি কেটে টুকরো টুকরো করে বিভিন্ন মুসলিম রাষ্ট্র ও সংস্থাকে উপহার হিসেবে প্রদান করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ