ঢাকা, সোমবার 12 September 2016 ২৮ ভাদ্র ১৪২৩, ৯ জিলহজ্ব ১৪৩৭ হিজরী
Online Edition

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের গ্রেফতার করুন -খেলাফত মজলিস

স্টাফ রিপোর্টার : সিলেট হাসপাতালসংলগ্ন কাজল শাহ জামে মসজিদে জুমার নামাযের সময় ইসকন ও হরে কৃষ্ণ আন্দোলনের লোকজন কর্তৃক গান, বাদ্য বাজিয়ে নামায বাধাগ্রস্ত করার প্রেক্ষিতে পুলিশ কর্তৃক শতাধিক মুসল্লি গ্রেফতার এবং মন্দির থেকে মুসল্লিদের ওপর গুলীবর্ষণের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস। সংগঠনের আমীর প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রহমান ও মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক গতকাল রেবাবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ৯৫ ভাগ মুসলমানের দেশ বাংলাদেশে নামাযের সময় সকল প্রকার গান, বাদ্য, বাজনা ইত্যাদি বন্ধে আইন করতে হবে। দেশের সকল মসজিদের নিকটবর্তী এলাকায় ও মন্দিরে গান-বাজনা বন্ধসহ মসজিদের জায়গা দখলবাজমুক্ত রাখতে হবে। বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, গত ২ সেপ্টেম্বর সিলেট হাসপাতাল সংলগ্ন কাজল শাহ জামে মসজিদে পবিত্র জুমার নামাজের পূর্ব থেকে পার্শ¦বর্তী ইসকন এবং হরেকৃষ্ণ আন্দোলন নামীয় হিন্দু ভক্তরা উচ্চ আওয়াযে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে নামাযকে বাধাগ্রস্ত করে। একপর্যায়ে মুসল্লিরা উক্ত মন্দিরে এসে ইসকন ও হরেকৃষ্ণ আন্দোলনের লোকদের নিকটে এসে উচ্চস্বরে বাদ্যযন্ত্র বাজানোর প্রতিবাদ করেন। এ সময় হিন্দু লোকজন গান-বাজনা বন্ধ করবে বলে মুসল্লিদের জানান। তখন মুসল্লিরা মসজিদে গিয়ে নামায শুরু করলে ঐ মন্দির থেকে আরো উচ্চস্বরে গান বাদ্য বাজানো শুরু হয়। এরফলে ইমামের তাকবীর শোনা বাধাগ্রস্ত হলে নামাযে রুকু সিজদায় চরম বিঘœ ঘটে। নামায শেষে মুসল্লিরা উক্ত মন্দিরে এসে প্রতিবাদ জানায়। এ পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বাদানুবাদ হয়। একপর্যায়ে ইসকন মন্দিরের পক্ষ থেকে মুসল্লিদের উপর গুলী ছুঁড়লে ৮/১০ মুসল্লি আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে শতাধিক মুসল্লিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনা মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে চরম আঘাত। এ ধরনের কর্মকা- এদেশে হিন্দুত্ববাদ প্রতিষ্ঠার পদধ্বনি। তারা বলেন, যারা মুসল্লীদের উপর হামলা ও গ্রেফতার করে সাম্প্রদায়িক সমপ্রীতি বিনষ্ট করছে তাদেরকে গ্রেফতার করতে হবে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার ফলে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কর্তৃক আল্লাহ, রাসূল (সা.) নিয়ে বারবার জঘন্য কটূক্তির ঘটনাও ঘটানো হচ্ছে। এটা  ৯৫ ভাগ মুসলমানের দেশে চলতে পারে না। এর আশু সমাধান করতে সরকারকে জরুরী ভূমিকা নিতে হবে। অন্যথায় দেশের কোটি কোটি মুসল্লি সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবে। নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে বলেন, নির্বিঘেœ মসজিদে নামায আদায়ের ব্যবস্থা করা এবং  দেশের যেসব এলাকায় মসজিদের পাশাপাশি মন্দির-গির্জা রয়েছে এসব মসজিদে ইবাদাতকালীন সময়ে উচ্চ আওয়াজে গান-বাদ্যযন্ত্র বাজানো নিষিদ্ধ করতে হবে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ