ঢাকা, সোমবার 12 September 2016 ২৮ ভাদ্র ১৪২৩, ৯ জিলহজ্ব ১৪৩৭ হিজরী
Online Edition

নাচোল সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে চাঁদা দাবি ও প্র্রাণনাশের হুমকি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতা: নাচোল সাব-রেজিস্ট্র্রি অফিসে ঢুকে এজলাসে বসে থাকা সাব-রেজিস্ট্রারের কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে নাচোল পৌর যুব লীগের সভাপতি মো. সুলতানের বিরুদ্ধে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় প্র্রাণনাশের হুমকিরও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই সময় তাঁর সঙ্গে দু’জন সহযোগীও ছিল। ঘটনাটি ঘটেছে গত ৭ সেপ্টেম্বর বিকেলে। এ ব্যাপারে নাচোল থানায় সাব-রেজিস্ট্রার ফারহানা আজিজ বাদী হয়ে রাত সাড়ে ন’টায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
সাব-রেজিস্ট্রার ফারহানা আজিজ মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, এজলাসে কাজ করার সময় নাচোল পৌর যুবলীগের সভাপতি পরিচয় দেওয়া সুলতানসহ কয়েকজন যুবক এজলাসে এসে ঈদ উপলক্ষে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে সুলতান অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং এজলাসের টেবিলের উপর থাপ্পড় মেরে বলেন, আমি যে অফিসে ঢুকি সেই অফিসে খালি হাতে ফিরে যায় না। তুই টাকা দিলি না। অফিস থেকে বের হ’ তোকে শেষ করব। সুলতান আরো বলে, তুই মেয়ে মানুষ। কিভাবে তুই এখানে চাকরি করিস তোকে দেখে নিব। তোর অফিস কর্মচারীদের ক্ষতি করব। এ বলে সে এজলাশের চেয়ার ফেলে দেয়। এ সময় কর্মচারীরা তাকে জাপটে ধরে আটকানোর চেষ্টা করলে সে জামা ছিঁড়ে পালিয়ে যায়। যাওয়ার সময় আমাকে ও কর্মচারীদের প্র্রাণনাশের হুমকি দিয়ে  যায়। পরে কর্মচারী ও মোহরাদের নিকট থেকে জানতে পারি তাঁর নাম মো. সুলতান (২৭)। সে নাচোলের কন্যানগর গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ