ঢাকা, শুক্রবার 23 September 2016 ৮ আশ্বিন ১৪২৩, 20 জিলহজ্ব ১৪৩৭ হিজরী
Online Edition

এমন পরোপকারী মানুষের খুবই প্রয়োজন

ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিম : গত ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় “অন্য রকম একজন” শিরোনামে একজন পরোপকারী সাইফুলের গল্প ছাপা হয়েছে যা সত্যিই ভাল লেগেছে আমার মতো অনেকের। আসলে প্রতিনিয়ত হিংসা-বিদ্বেষ, গুম-খুন, ফাঁসি, হানা-হানি, অনাচার, লোভ-লালসা, দুর্নীতির নানান খারাপ খবরের বন্যায় মনে হয় ভেসে যাচ্ছে আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্র। তার মাঝে সততা, পরোপকার, নির্লোভ আর নি:স্বার্থ সাদা মনের মানুষের দু’একটি ঘটনা সত্যিই আমাদেরকে আলোড়িত করে। অনেক হতাশার মাঝে ও আলোর হাতছানি। 

অথচ মানুষ আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে সব সময় ভাল কাজই করার কথা। কিন্তু হচ্ছে তার বিপরীত। এজন্য এককভাবে কাউকে দায়ী করার সুযোগ আছে? তবে একথা সত্য যে, ইচ্ছা থাকলে অনেক স্বল্প সম্পদ নিয়েও মানুষের পাশে দাঁড়ানো যায়, তা আজকের সমাজে সাইফুলদের মতো অনেক নি:স্বার্থ মানবপ্রেমিক প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। এ জন্য মহাগ্রন্থ আল-কুরআনে বলা হয়েছে “আল্লাহ পরোপকারীদের পছন্দ করেন।” (৩:১৪৮) 

প্রত্রিকার রির্পোটে বলা হয়েছে- “তরুণ সাইফুল ইসলাম চাকরি করেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। বাকি সময় কাটান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অজ্ঞাতনামা, অসহায় রোগীদের সেবা করে। যার কেউ নেই, তার পাশেই তিনি দাঁড়ান। তাঁকে বাড়ি ফিরিয়ে দিয়েই সাইফুলের শান্তি। দশ বছরে প্রায় ২০০ মানুষ বাড়ি ফিরে গেছেন সাইফুলের সহায়তায়।” 

ভøাদিমার কুলতুভের যখন জ্ঞান ফিরছে, তখন তিনি দেখতে পাচ্ছেন আবছা একটি টানেল, তার অপর প্রান্তে দেখা যাচ্ছে হালকা আলো, তিনি দৌড়াচ্ছেন সে আলোরদিকে আর নরম আলোর আবির মেখে দুহাত বাড়িয়ে তাঁর দিকে ছুটে আসছেন যমজ ভাই আদিলভ। তাঁর আবছা হাসি-হাসি মুখে বিন্দু বিন্দু ফুটে উঠছে মমতা। ভাইয়ের মমতামাখা মুখ দেখতে দেখতে তিনি আবার জ্ঞান হারালেন।

 আবার যখন তিনি চেতনে ফিরে এলেন, তখন ঘোরের মধ্যে তাঁর মনে হলো, আমি কোথায়? আমার মাথার পাশে উদ্বিগ্ন অসম্ভব মায়ামাখা চেহারাটি কার?

কুলতুভ আসলে তখন ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ইউক্রেনের এই নাগরিক বাংলাদেশে এসেছিলেন একটি বিমান পরিবহন কোম্পানির কার্গো বিমানের ক্রু হিসেবে। কক্সবাজার থেকে চিংড়ির পোনা নিয়ে তাঁরা উড়ে যেতেন দেশের নানা প্রান্তে। গত বছরের ৯ মার্চ তাঁদের সোনালি ডানার ছোট্ট বিমান বঙ্গোপসাগরে আছড়ে পড়ে। পাইলটসহ বাকি তিনজন ক্রু সঙ্গে সঙ্গে নিহত হন। কেবল বেঁচে যান তিনি। আর হাসপাতালে অর্ধচেতন অবস্থায় তাঁর দিকে তাকিয়ে থাকা মানুষটির নাম সাইফুল ইসলাম। সবাই তাঁকে চেনে নেসার নামে। পেশায় ডিপ্লোমা প্রকৌশলী নেসার কিন্তু হাসপাতালের কোনো কর্মী নন, কুলতুভকেও তিনি এর আগে দেখেননি। তাহলে মরণাপন্ন ভিনদেশী এ বিমানকর্মীর পাশে তিনি কেন?

 এখানেই নেসারের আলাদা পরিচয়, যা একটি কথাই আবার প্রমাণ করে, মানুষের মহত্বের চেয়ে বড় কিছু নেই। ২৫ বছরের এ যুবক চাকরি করেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে, আর চাকরির পর বাকি সময় কাটান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অজ্ঞাতনামা, অসহায় রোগীদের সেবা করে। যার কেউ নেই, তার পাশেই তিনি দাঁড়ান, সুস্থ করে তোলেন। তারপর তাঁকে বাড়ি ফিরিয়ে দিয়েই তাঁর শান্তি। এ অসাধারণ মানবিক কাজের মাধ্যমে তিনি প্রায় ২০০ মানুষের সেবা করেছেন, যাঁদের অনেকেই সুস্থ হয়ে তাঁর হাত ধরে বাড়ি ফিরে গেছেন। প্রায় ১০ বছর ধরে তিনি এ কাজ করছেন।

তাঁকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, ‘কেন এ কাজে জড়ালেন?’

এক ধরনের বেদনা ফুটে উঠল তাঁর চেহারায়, বললেন, পড়তাম ফেনী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে, তার পাশেই ফেনী হাসপাতাল। প্রায়ই সেখানে যেতাম, দেখতাম, কত অসহায় রোগী কষ্ট পাচ্ছেন, তখন নিজের অজান্তে তাঁদের পাশে গিয়ে দাঁড়ানো শুরু করলাম। প্রথম প্রথম রক্ত জোগাড় করে দিতাম, পরে নিয়মিত সেবায় লেগে গেলাম। ব্যাপারটি মাথায় আরও বেশি ঢুকে যায় ২০০৭ সালে টাকার অভাবে বাবা যখন প্রায় বিনা চিকিৎসায় মারা যান। তখন প্রতিজ্ঞা করলাম, যতো সামান্য আয়ই করি না কেন, তা খরচ করবো অসহায় রোগীদের জন্য। সেই থেকে শুরু। বিশেষ করে অজ্ঞাতনামা রোগীদের জন্য কিছু করতে মন চায়, কারণ, তাদের দেখার, খরচ দেয়ার কেউ নেই।

এ সেবাকে নেসার এক ধরনের ব্রত হিসেবে নিয়েছেন, তাই রোগীর খবর পেলেই তিনি দ্রুত হাসপাতালে ছুটে আসেন, ওষুধ কিনে দেন, পাশে দাঁড়িয়ে সেবা দেন। তাঁর ভাষায়, যখন সেই রোগী ভালো হয়ে স্বজনদের খোঁজ পান, বাড়ি ফিরে যান, তখন আনন্দে কেঁদে ফেলি। আবার অনেকের সুস্থ হওয়া হয় না, চিরনিদ্রার কোলে ঢলে পড়েন, তখন মন ভেঙে যায়, মনে হয়, আহা! কার যেন সোনামানিক, জানতেও পারল না কোথায় শুয়ে আছে!

 এ পর্যন্ত কতজন রোগীকে সেবা দিয়েছেন, জানতে চাইলে নেসার অতৃপ্তি নিয়ে জবাব দেন, মাত্র ২০০। অবাক বিস্ময়ে দীর্ঘ মানুষটির দিকে তাকিয়ে থাকি, একদম অপরিচিত ২০০ মানুষকে বিনা স্বার্থে নিজের গাঁটের পয়সা খরচ করে সেবা করে বলছেন, মাত্র ২০০! তাঁর ওয়েবসাইটে (www.mdnasar.org) অনেকের তথ্যই রয়েছে।

এই যে অজ্ঞাতনামা রোগীদের পেছনে  এতো টাকা খরচ করেন, পারিবারিকভাবে সমস্যা হয় না, জিজ্ঞেস করতেই নেসার তৃপ্তির হাসি হাসেন, না, হয় না, বরং তাঁরা উৎসাহ দেন, এমনকি আমার মা তাঁদের জন্য খাবার রান্না করে দেন। তাঁদের এবং নিজের অনেক শখ-আহ্লাদ মেটাতে পারি না, তা নিয়ে কোনো দুঃখ নেই, বরং তাঁরা আমার কাজ নিয়ে গর্বিত।

কথা হয় নেসারের সাহায্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে যাওয়া রোগী স্মরণজিত বড়ুয়ার ভাই বরণজিত বড়ুয়ার সঙ্গে। এ ভদ্রলোক চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হলে তাঁকে অজ্ঞান অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। ভর্তি করা হয় অজ্ঞাতনামা রোগী হিসেবে। খোঁজ পড়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বন্ধু নেসারের। তিনি পরম আত্মীয়ের মতো স্মরণজিতের পাশে থেকে, নিজের পয়সায় ওষুধ কিনে তাঁকে সুস্থ করে বাড়ি ফিরিয়ে দেন। এ রোগীর ভাই বরণজিত বললেন, ‘আমরা কখনোই নেসার ভাইয়ের ঋণ শোধ করতে পারব না। আমরা সবাই যখন নিখোঁজ ভাইয়ের জন্য পাগলপ্রায়, তখন তিনি নিজের দায়িত্বে তাঁর চিকিৎসা করিয়েছেন, বাড়ি ফিরিয়ে এনেছেন। তিনি না থাকলে হয়তো ভাই বাঁচতেন না, বলতে বলতে টেলিফোনের অপর পারে হাউমাউ করে কাঁদতে থাকেন বরণজিত।

একই কথা বললেন নাঙ্গলকোটের পারভীন। তাঁর বোন রুমাও দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন, তারপর তাঁর সেবায় ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন নেসার, ভাইয়ের মমতায়। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি রুমাকে বাঁচাতে পারেননি, তবে তাঁর লাশ পরম মমতায় স্বজনদের কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন।

 নেসারের ব্যাপারে কথা হলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. নারায়ণ ধরের সঙ্গে। তিনি বললেন, এ যুবক অসহায়, দরিদ্র, অজ্ঞাতনামা রোগীদের জন্য যা করেন, তার কোনো তুলনা হয় না। এ নিঃস্বার্থ সেবায় তাঁর নিবেদন দেখে খালি এটুকুই বোঝা যায়, বুকের গভীরে মায়ার অতল সাগর না থাকলে এটা সম্ভব নয়।

২৫ বছরের টগবগে এ যুবক যৌবনের সমস্ত আনন্দ বিসর্জন দিয়ে হাসপাতালের নীরস পরিবেশে রোগীদের পাশে কেন সময় কাটান, তা জিজ্ঞেস করা হলে তিনি মুচকি হেসে বলেন, নিজেও জানি না, তবে প্রতিদিন সন্ধ্যা হলেই হাসপাতাল আমাকে ডাকে। মনে হয়, সেখানে অপেক্ষা করছেন কোনো এক অসহায় মানুষ, যার পাশে কেউ নেই, আমাকে তার পাশে গিয়ে দাঁড়াতে হবে, এক্ষুণি দাঁড়াতে হবে। সে অদৃশ্য ডাকে আমি ছুটে যাই, আর কোনো বিনোদন আমাকে ডাকে না।

একেই কি বলে মানবতার ডাক? নিজেকেই জিজ্ঞেস করি, আবার নিজেই উত্তর দিই, হ্যাঁ, কেবল অপার্থিব মানবতার ডাক শুনতে পেলেই এটা সম্ভব। আর এ ডাক সবাই শুনতে পারেন না, কেবল ‘অন্য রকম’ মানুষেরাই পারেন।

সাইফুল ইসলাম সেই অন্য রকম মানুষ, তাই তিনি ডাক শুনতে পান হাসপাতালে শুয়ে থাকা অসহায় মানুষের, সন্ধ্যা নামলেই সেখানে ছুটে যান গভীর রাতে। পুরো শহর যখন ঘুমিয়ে পড়ে, তখন তিনি মমতা নিয়ে জেগে থাকেন অপরিচিত রোগীর শয্যাপাশে।

 নিজের ওয়েবসাইটে তিনি লিখেছেন- “আমার নাম সাইফুল ইসলাম নেসার। গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার ছাগলনাইয়ায়। জন্ম ভাটিয়ারির বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে। স্কুল জীবনে ভাটিয়ারির বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার থেকে ২০০৬ সালে এস এস সি সম্পূর্ণ করি। ফেনী পলিটেকনিক্যাল থেকে মেকানিক্যাল ডিপার্টমেন্টে ডিপ্লোমা সম্পূর্ণ করি।

সুবিধাবঞ্চিত পরিচয়হীন মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করি সবসময়। ২০০৭ সালে আমার বাবা চিকিৎসার অভাবে মারা যান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। আমার বাবার ২টি কিডনী নষ্ট হয়ে যায়। আমরা ৩ ভাই ১ বোন। আমার ভাইরা আমার কাছাকাছির বয়সের। বড় ভাই ওষুধের দোকানে এবং মেজ ভাই গার্মেন্টসে খুব অল্প বেতনের চাকরি করতো। আমি ফেনী পলিটেকনিক্যালে ১ম বর্ষের ছাত্র ছিলাম। তাই আমার বাবার চিকিৎসার জন্য কোনো সহযোগিতা করতে পারিনি আমি। ভাইদের সামান্য বেতনের টাকা দিয়ে বাবার ওষুধের খরচ যোগাতে হতো। সংসারে টানাপোড়েন লেগে থাকতো। পরিবারকে সামান্য সহযোগিতাও করতে না পেরে চোখের জল ফেলা ছাড়া আমার কিছুই করার ছিল না। অনেক বার বাবার চিকিৎসার খরচ যোগাতে ঢাকাতে গার্মেন্টস এ সাধারণ চাকরি নেই। কিন্তু তাতেও সম্ভব হয়নি। শেষ পর্যন্ত বাবা চিকিৎসার অভাবেই মারা যান। সে সময় আমার বাবার চিকিৎসার জন্য তেমন কেউ পাশে দাঁড়ায়নি। বাবার বন্ধুরা কিছু সহযোগিতা করেছিল।

অনেকটা চিকিৎসার অভাবেই মারা যান আমার বাবা। বাড়িতে মাঝে মাঝে বাবার অবস্থা অনেক খারাপ হয়ে যেতো। বাড়ির সকলে ছুটে আসতো। বলতো নেসার ঢাকা বা চিটাগাং নিয়ে যাও। কিন্তু কিভাবে নেবো আমরা অর্থের অভাবে বাবাকে হাসপাতালে নিতে সাহস পেতাম না। বাড়ি থেকে অনেক দূরে গিয়ে বসে বসে কান্না করতাম। সেই থেকে হাসপাতালের অসহায় মানুষ নিয়ে কাজ করা শুরু করলাম।

আমার মিশন হলো হাসপাতালে অসহায়, নিঃস্ব, স্বজনহীন রোগীদের পাশে থেকে সেবা করা এবং তাদেরকে তাদের নিকটাত্মীয় স্বজনের কাছে ফিরিয়ে দেয়া। তাছাড়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, ডাক্তার ও সেবক সেবিকাদের মধ্যে এ ধরনের রোগীদের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। সূত্র-www.mdnasar.org) 

আমরা আমাদের প্রিয় সাইফুল ইসলাম নেসারকে এমন মহৎ কাজের জন্য ধন্যবাদ জানাই। সাথে সাথে আল্লাহর নিকট তার উত্তম পুরস্কার কামনা করছি। তার মতো আমাদের প্রত্যেকেরই রয়েছে এই সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা। আমরা যদি সকলেই দায়িত্ব সচেতন হই। তাহলে সমাজের চিত্র আরো অনেক সুন্দর ও সুখকর হবে।

আসুন আমরা সকলেই নিজেদের সাধ্যমত অসহায়, গরীর মানুষের পাশে দাঁড়াই। এই হোক আমাদের আজকের অঈীকার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ