ঢাকা, বুধবার 5 October 2016 ২০ আশ্বিন ১৪২৩, ৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আট মাসে ৪৬ কি.মি. অবৈধ গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে -জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

সংসদ রিপোর্টার : ঢাকাসহ দেশের অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।
গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে নরসিংদী-২ আসনের এম আবদুল লতিফ এমপির তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান প্রতিমন্ত্রী। বিকাল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের  বৈঠক শুরু হয়।
তিনি বলেন, গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানিগুলো কর্তৃক গঠিত ভিজিল্যান্স টিম নিয়মিত অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ কর্মসূচি সম্পন্ন করে আসছে। এছাড়া চুরি বা অবৈধ সংযোগ উচ্ছেদের জন্য জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের একজন অতিরিক্ত সচিবের একটি আন্ত:মন্ত্রণালয় কেন্দ্রীয় কমিটিসহ  জেলা প্রশাসকের  নেতৃত্বে জেলা কমিটি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, চলতি বছর জানুয়ারি - অধিভুক্ত এলাকায় পরিচালিত ৩৭টি অভিযানের মাধ্যমে ৪৬ কিলোমিটার অবৈধ বিতরণ লাইন ও প্রায় ২৬ হাজার ৯৮৩টি বার্ণারের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোং লিঃ-এর অধিভুক্ত এলাকায় চলতি বছরের আগস্ট মাসে পরিচালিত অভিযানের মাধ্যমে নয়টি অবৈধ লাইন উচ্ছেদ ও দু'টি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোং লিঃ-এর অধিভুক্ত এলাকায় আগস্ট মাসে পরিচালিত অভিযানের মাধ্যমে দু'টি অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
বেগম লায়লা বেগমের মহিলা আসন-৮ অপর এক প্রশ্নের জবাবে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী জানান, গ্যাসের চাহিদার তুলনায় সরবরাহের ঘাটতি থাকায়, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্যাস পাইপলাইন সম্প্রসারণ এবং নতুন সংযোগ প্রদানে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। বর্তমানে দেশে গ্যাসের মজুদ, চাহিদা ও সরবরাহ পরিস্থিতি বিবেচনায় নতুন এলাকায় নেটওয়ার্ক বর্ধিত না করে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টার  নেতৃত্বে গঠিত কমিটির মাধ্যমে শিল্পখাতে গ্যাস সংযোগ প্রদান করা হচ্ছে।
নরসিংদী-২ আসনের এমপি কামরুল আশরাফ খানের তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে  প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত তিতাস গ্যাস অধিভুক্ত এলাকায় পরিচালিত ৩৭টি অভিযানের মাধ্যমে ৪৬ কিলোমিটার অবৈধ বিতরণ লাইন ও প্রায় ২৬ হাজার ৯৮৩টি বার্নারের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানিগুলো গঠিত ভিজিল্যান্স টিম নিয়মিত অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ কর্মসূচি সম্পন্ন করে আসছে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ আগস্ট  পর্যন্ত তিতাস গ্যাস অধিভুক্ত এলাকায় পরিচালিত ৩৭টি অভিযানের মাধ্যমে ৪৬ কিলোমিটার অবৈধ বিতরণ লাইন ও প্রায় ২৬ হাজার ৯৮৩টি বার্নারের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির অধিভুক্ত  এলাকায় গত আগস্ট মাসের অভিযানে ৯টি অবৈধ লাইন উচ্ছেদ ও ২টি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এছাড়া কর্ণফুলি গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির অধিভুক্ত এলাকায় গত আগস্ট মাসে পরিচালিত অভিযানের মাধ্যমে ২টি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের এমপি  গোলাম দস্তগীর গাজীর তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে নসরল হামিদ বলেন,  দেশে এ পর্যন্ত আবিষ্কৃত ৫টি কয়লা ক্ষেত্রের সম্ভাব্য কয়লা মজুদের পরিমাণ ৩ হাজার ৫৬৫ মিলিয়ন  মেট্রিকটন।
তিনি বলেন, এ কয়লার মান পৃথিবীর অনেক দেশের কয়লার চেয়ে উন্নত হলেও তা সহজেই উত্তোলনযোগ্য নয়। ভূ-পৃষ্ঠ হতে কয়লা স্তরের গভীরতা, জিওলজিক্যাল ও হাইড্রোলজিক্যাল কারণে অধিকাংশ ক্ষেত্রে কয়লা উত্তোলন বেশ জটিল। এছাড়া ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা হওয়ায় পুনর্বাসনও একটি বড় সমস্যা। বর্তমানে শুধুমাত্র বড়পুকুরিয়া কয়লা হতে আন্ডারগ্রাউন্ড পদ্ধতিতে বছরের প্রায় ১ মিলিয়ন  মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা হচ্ছে। এর বিস্তৃতি আরও বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এছাড়া দীঘিপাড়া কয়লা খনি উন্নয়নের জন্য সমীক্ষা চলমান আছে। কয়লার উৎপাদন বৃদ্ধি করে তা হতে বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধির বিষয়টি সরকারের বিবেচনায় রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ