ঢাকা, বুধবার 5 October 2016 ২০ আশ্বিন ১৪২৩, ৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কুরআনী শিক্ষা না থাকায় মানুষ উগ্রবাদে ধাবিত হচ্ছে -পীর সাহেব চরমোনাই

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, নৈতিকতা বিবর্জিত জাতিকে কুরআনের আলো ছড়িয়ে দিয়ে সৎপথে ফিরিয়ে আনতে হবে। কুরআনী শিক্ষা না থাকায় সমাজে ঐশীর মতো নৈতিকতাহীন মেয়ে সৃষ্টি হচ্ছে, ফলে সন্তানের হাতে বাবা-মাকে খুন হতে হয়, অপরদিকে মা কর্তৃকও শিশু হত্যার মত ঘটনা আমাদের বিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছে। ৬৮ হাজার গ্রামে ৬৮ হাজার কুরআনী মক্তব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কুরআন থেকে দূরে সরা জাতিকে কুরআনের পথে ফিরিয়ে আনতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন শিক্ষার সকলস্তরে কুরআনী শিক্ষা বাধ্যতামূলক সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করা। তিনি বলেন, কুরআনের আলো তথা কুরআনের শিক্ষা না থাকায় দেশে নৈতিকতার চরম বিপর্যয় ঘটছে। এ থেকে মুক্তি পেতে কুরআনের আলোয় আলোকিত হতে হবে।
গত সোমবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ কুরআন শিক্ষা বোর্ড ঢাকা মহানগর আয়োজিত ইসলামী মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। রাজধানীর বাবুবাজার মাজার সংলগ্ন মাঠে আয়োজিত বিশাল ইসলামী সম্মেলন বিশিষ্ট সমাজসেবক টিপু সুলতানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুরআন শিক্ষা বোর্ডের নির্বাহী সভাপতি মুফতী সৈয়দ নূরুল করীম, সচিব আল্লামা নূরুল হুদা ফয়েজী, নওমুসলিম ডা. সিরাজুল ইসলামী সিরাজী, শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হোসাইন, বোর্ডের ঢাকা মহানগর সভাপতি হাফেজ মাওলানা খলিলুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় কাউন্সিলর মুহাম্মদ বিল্লাল শাহ, মুহাম্মদ আব্দুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুল ওয়াদুদ।
পীর সাহেব চরমোনাই আরও বলেন, শিশুদেরকে কুরআনী শিক্ষা থেকে দূরে রাখতে কতিপয় এনজিও কাজ করে যাচ্ছে। মুসলমানদেরকে কুরআন শিখাতে কুরআন শিক্ষা বোর্ড কাজ করে যাচ্ছে। এ বোর্ডকে সম্মিলিতভাবে সহযোগিতা করতে হবে। তিনি বলেন, দেশে সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে তার একমাত্র কারণ কুরআনী শিক্ষা না থাকা। কুরআন মানুষকে পশুত্ব থেকে প্রকৃত মানুষে পরিণত করে। কুরআনী শিক্ষা থাকলে এই মানুষকে বিপথগামী করা সম্ভব হয় না। তিনি বলেন, সিলেবাসে হিন্দুয়ানী শিক্ষায় ভরপুর। ৯২ ভাগ মুসলমানের সন্তানরা হিন্দুয়ানী শিক্ষা শিখবে কেন? তিনি বলেন, কৌশলে সিলেবাসের মাধ্যমে আমাদের সন্তানদেরকে ধর্মহীন জাতিতে পরিণত করার জন্য সরকারের ভিতর ও বাইরে একটি নাস্তিক্যবাদী চক্র কাজ করছে। সরকার নাস্তিক্যবাদী ফাঁদে পা দিয়ে সিলেবাস সংশোধন না করলে সারা দেশে ঈমানদার জনতা রাস্তায় নেমে আসলে সরকারের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে না। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ