ঢাকা, বুধবার 5 October 2016 ২০ আশ্বিন ১৪২৩, ৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের উচ্চ মুনাফার ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে

রাজধানীর একটি হোটেলে গতকাল মঙ্গলবার বিশ্ব বসতি দিবস উপলক্ষে রিহ্যাবের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের উচ্চ মুনাফার ধারা থেকে বের হয়ে ব্যবসা পরিচালনার আহ্বান জানিয়েছেন রিহ্যাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি। দেশের উন্নয়নে এ খাতের ব্যবসায়ীদের মনোভাব পরিবর্তন করতে হবে।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে বিশ্ব বসতি দিবস-২০১৬ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শেখ শহিদুল ইসলাম, সাংবাদিক আবু সায়ীদ খান, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম চৌধুরী, রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে মূল প্রবদ্ধ উপস্থাপন করেন নাগরিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান শরিফ।
নুরুন্নবী চৌধুরী বলেন, আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের মধ্যে সমস্যা রয়েছে। কিছু ব্যবসায়ী ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে দ্রত সময়ে শতকোটি টাকার মালিক হয়েছেন, যা পৃথিবীর অন্য কোথাও সম্ভব নয়। দেশের উন্নয়নে এ খাতের ব্যবসায়ীদের মনোভাবের পরিবর্তন করতে হবে। আমাদের উচ্চ মুনাফার ধারা থেকে বের হয়ে আসতে হবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের দেওয়া ট্যাক্সের টাকায় চলে সরকার। আবার দেশের হাউজিং খাতের উন্নয়নে কাজ করছে রিহ্যাব। সবকিছুর পরও এ খাতে অসহযোগিতামূলক আচরণ করছে সরকার। এ খাতকে শিল্প হিসেবে বিবেচনা করা হলে এর উন্নয়ন সম্ভব।
রিহ্যাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বলেন, শহরাঞ্চল ছাড়াও রিহ্যাবকে জেলা, উপজেলা পর্যায়ে কাজ করতে হবে। গৃহায়ণ খাতে ভর্তুকির ব্যবস্থা করতে হবে। ক্রেতাদের সিঙ্গেল ডিজিটে ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করতে হবে।
 শাওন বলেন, গত ৬ বছরে বাংলাদেশের ৫৭ লাখ লোক বাস্তুহারা হয়েছে। এর একটা বড় অংশ প্রতিদিনই রাজধানী ঢাকায় আসছে। ঢাকার ফুটপাতসহ নানা জায়গায় খোলা আকাশের নিচে রাতযাপন করছেন অনেকেই। আমরা এই অবস্থার পরিবর্তন চাই।
অনুষ্ঠানের বক্তরা বলেন, এখনও আমাদের কোনো আবাসন নীতি নেই। হাউজিং খাতের উন্নয়নে আবাসন নীতি থাকা উচিত। রাজউককে ব্যবসার চিন্তা বাদ দিয়ে রাজধানীর উন্নয়নে মনোযোগ দিতে হবে।
শরিফুজ্জামান শরিফ তার প্রবন্ধে বলেন, রাজধানীমুখী জনস্রোত ঠেকাতে গ্রামে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্র তৈরি করা, খাসজমি চিহ্নিত করে ভূমিহীনদের মধ্যে বিতরণ করা, গৃহ নির্মাণে সুদের হার কমিয়ে আবাসন ঋণ তহবিল গঠন, জাতীয় বাজেটে আবাসন খাতের জন্য বরাদ্দ রেখে তহবিল গঠনের সুপারিশ করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ