ঢাকা, বুধবার 5 October 2016 ২০ আশ্বিন ১৪২৩, ৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা নিয়ে ভারতীয় মন্ত্রীর বক্তব্য ঔদ্ধর্ত্যপূর্ণ’

স্টাফ রিপোর্টার : ভারত ‘১৯৭১’ সালে বাংলাদেশকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছে- ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকরের এমন বক্তব্যের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানিয়ে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া গতকাল মঙ্গলবার গণমাধ্যমে প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেছেন, ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে এবং মহান মুক্তিসংগ্রামে শহীদদের অপমানিত করেছেন। এই বক্তব্যের মাধ্যমেই প্রমাণিত হয়েছে ভারত এখনও বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে স্বীকার করে না। তারা বাংলাদেশকে করদ রাজ্যে পরিণত করার চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছরেও বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁঁড়াতে পারে নাই ভারতের অব্যাহত আগ্রাসনের কারণে। ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক হতে হবে সমমর্যাদার ভিত্তিতে কার্যকরী সম্পর্ক। আমরা শুধু ভারতকে দিয়ে যাব বিনিময়ে আমরা কিছুই পাবো না তা হতে পারে না। আওয়ামী লীগের মেরুদ-হীন আচরণের কারণেই ভারতের মন্ত্রীরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা সম্পর্কে ঔদ্ধত্যপর্ণ বক্তব্য রাখার ধৃষ্টতা দেখাচ্ছে। ভারতের মনে রাখা উচিত জাতি হিসাবে আমরা দুর্বল নই। যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি, লড়াই করেই ভারতীয় আগ্রাসন রুখবো।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় মুক্তিযুদ্ধের চেনার ফেরিওয়ালেদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রাখেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতা নিয়ে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যের পর তাদের চেতনাবোধ কোথায় হারিয়ে গেছে? এখন পর্যন্ত চেতনাধারীদের এই বিষয়ে কোন বক্তব্য কেন নাই? নাকি ভারতীয় তাবেদারী করতে করতে মেরুদ-হীন হয়ে পড়েছেন যে কোন প্রতিবাদ করতে পারছেন না? নাকি শুধুমাত্র ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ফেরী করেন? নেতৃদ্বয় বলেন, বাংলাদেশ ভারতসহ সকলের বন্ধুত্ব চায় এবং সেই বন্ধুত্ব হবে সমমর্যাদার ভিত্তিতে। কোন প্রভুত্ব বাংলাদেশের জনগণ অতীতেও মেনে নেয়নি, ভবিষ্যতেও মেনে নিবে না। বাংলাদেশকে কারো কাছে ইজারা দেয়া হয় নাই। শুধুমাত্র ক্ষমতার জন্য যারা বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিবে ইতিহাসের কাঠ গড়ায় তাদের বিচার হবে। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার প্রশ্নে এক চুলও আপোস করা হবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ