ঢাকা, মঙ্গলবার 25 October 2016 ১০ কার্তিক ১৪২৩, ২৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজধানীতে দুই কলেজছাত্রীকে লাঞ্ছনাকারী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর মিরপুরে চিড়িয়াখানা এলাকায় বিসিআইসি কলেজের একাদশ শ্রেণির দুই ছাত্রীকে (জমজ বোন) শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও মারধরের ঘটনায় জড়িত এক যুবককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। গ্রেফতারকৃত যুবকের নাম জীবন করিম ওরফে বাবু। র‌্যাব জানায়- এই বাবু-ই মারধরের ঘটনার মূল হোতা। রোববার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব সদর দফতরের লিগ্যাল এ- মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান। 

তিনি জানান, ঘটনার পর র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে। জীবনের সহযোগীকে ঘটনার দিনই গ্রেফতার করে পুলিশ। জীবন পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জীবনকেও গ্রেফতার করা সম্ভব হয়। গতকাল সোমবার বেলা পোনে ১২টায় মিরপুর পাইকপাড়াস্থ র‌্যাব ৪ কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে র‌্যাবের সিপিসি মেজর আবু সাইদ বলেন, এই মারধরের কারণ হচ্ছে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করা। দুই বোনকে ওই গ্রেফতারকৃত বখাটে ইভটিজিং করতো। আর এর প্রতিবাদ করায় সে তাদেরকে মারধর করে।

অজ্ঞান পার্টির কবলে চারজন: রাজধানীর বিভিন্নস্থানে অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ে আহত ও সর্বস্বান্ত হয়েছেন চারজন। গতকাল সোমবার দুপুরে পৃথক এই চারটি ঘটনা ঘটে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আনিসুর রহমান (২৫), আব্দুল মান্নান (৬০),আবুল কালাম (৩০) ও শওকত আলী (৪০) নামে চারজন। অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়া আনিসুর হাসপাতালে আহতাবস্থায় জানায়, ব্রাহ্মবাড়িয়া থেকে ঢাকায় এসে রিকশায় তিনি গুলশানে যাচ্ছিলেন। এসময় রিকশাওয়ালা জানায়, সারাদিন সে কিছু খায়নি। তাই আনিসুর রিকশাওয়ালাকে খাবার আনতে বলেন। রিকশাওয়ালা পাশের দোকান থেকে জুস, কেক ও পান নিয়ে আসে। সে সময় জুস খেয়ে আনিসুর অচেতন হয়ে পড়েন। পরে তার বাবা তাকে বিকাল ৩টায় ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তার কাছ থেকে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা একটি মোবাইল সেট ও ৩ হাজার টাকা নিয়ে গেছে। 

এদিকে বাংলামোটর থেকে উদ্ধার হন আব্দুল মান্নান (৬০)। তার বাসা রায়েরবাগ কদমতলী। লাব্বাইক পরিবহেনের একটি বাস থেকে তাকে উদ্ধার করে দুপুর দেড়টার দিকে স্থানীয়রা ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসে। তার সঙ্গে কোনও টাকা ও সরঞ্জাম পাওয়া যায়নি। এছাড়া গুলিস্তান আহাদ পুলিশ বক্সের সামনে থেকে আবুল কালাম (৩০) নামে এক কাপড় ব্যবসায়ী অচেতন অবস্থায় পাওয়া গেছে। তার বাড়ি মুন্সীগঞ্জে। শাহাবুদ্দিন নামে এক আত্মীয় তাকে উদ্ধার করে দুপুর ২টার দিকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসে। তার সঙ্গে কিছুই পাওয়া যায়নি। 

মিরপুরের টেকনিক্যাল মোড়ে পিকঅ্যাপ চালক শওকত আলী (৪০) সাভার থেকে ইতিহাস পরিবহনে ঢাকায় আসছিলেন। এসময় তাকে বাসে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তার ভাগিনা জোনায়েদ খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে বিকাল ৩টায় ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসে। তার কাছে কোনও সরঞ্জাম পাওয়া যায়নি। আহত চার জনকেই ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ