ঢাকা, বৃহস্পতিবার 27 October 2016 ১২ কার্তিক ১৪২৩, ২৫ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইসরাইলী বাহিনী ফিলিস্তিনী তরুণীকে হত্যা না করলেও পারতো

২৬ অক্টোবর, আরব নিউজ : ছুরিবহয়েকারী ও পাথর নিক্ষেপকারী ফিলিস্তিনী নাগরিককে ইসরাইলী নিরাপত্তা বাহিয়েী হত্যা না করলেও পারত বলে দেশটির সরকারি  রেডিওর এক সংবাদে বলা হয়েছে। গত মঙ্গলবার পুরো বিষয়টি পর্যালোচনা করে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রেডিওটি। ইসরাইলী বাহিয়েী ফিলিস্তিনীদের হত্যা করে যে প্রাণঘাতী সহিংসতা সৃষ্টি করেছে, তা পরিহার করার সুযোগ ছিল বলেও প্রতিবেদনে বলা হয়।
ইসরাইলের সামরিক বাহিয়েীর একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়মিত কার্যবিধি অনুযায়ী তদন্ত করা হচ্ছে। তবে এ বিষয় এখনো তেমন কিছু বলা যাচ্ছে না। বিষয়টি এখনো অস্পষ্ট। যদি কোছে সামরিক কর্মকর্তা এ বিষয়ে জড়িত থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার নিশ্চিয়তা দিয়েছেন এই কর্মকর্তা।
প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ১৯ তারিখে ফিলিস্তিনের একজন মেয়ে ছুরি নিয়ে যাচ্চিলেন। ওই নারী ইসরাইলের সীমান্ত পুলিশ বাহিয়েীর আদেশে হত্যার স্বীকার হয়ে। সামরিক বাহিয়েীর এক গোপন সূত্রের বরাত দিয়ে জানায় রেডিওটি।
ইসারাইলের সামরিক আইন অনুযায়ী,  কোনো অপরাধীকে সতর্ক করার জন্য প্রথমে বাতাসে গুলী করতে হয়। নিয়ম ভঙ্গ করে ১৯ বছর বয়সী ওই ফিলিস্তিনী মেয়ের পায় এক রাউন্ড গুলী করে। এরপর চারজন কর্মকর্তা ৩০ রাউন্ডের অধিক গুলী ছুঁড়ে তার দিকে। ভিডিও ফুটেজে  দেখা যায় ওই চার কর্মকর্তা মাটিতে লুটিয়ে পরার পরে মেয়েটিকে গুলী করেছে। অন্য আরেকটি বিষয় পর্যালোচনা করে দেখা যায়, হিবরোন শহরের দক্ষিণ-পশ্চিম তীরের কাছে একই দিনে ফিলিস্তিনী পাথর নিক্ষেপকারী খালেদ বাহারকে (১৫) মারাত্মকভাবে গুলী করে হত্যা করে ইসরাইলী কর্মকর্তারা।
সরকারি রেডিওর প্রতিবেদনে বলা হয়, সামরিক তদন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী একজন ফিলিস্তিন পাশ দিয়ে যাওয়া একটি ইসরাইলী বাসে পাথর নিক্ষেপ করে। তদন্ত অনুযায়ী রিপোর্টে বলা হয়, যুবকরা স্বল্প পরিসরে পাথর ছুঁড়ছিল তাতে প্রাণহাণির  কোন আশঙ্কা ছিল না, তবে সেনা প্রধান তাদের গুলি করার আদেশ দেন। রেডিও প্রতিবেদনে বলা হয়,  সেনা কমান্ডার এভাবে সাধারণ মানুষের উপর গুলী চালানোর আদেশ দেওয়া উচিত হয়নি। একজন ইসরাইলী সৈনিকের বিচার চলছে নরহত্যা করার জন্য, ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় মার্চে একজন ফিলিস্তিন আক্রমণকারীকে আহত করেছে।
২০১৫ সালে ফিলিস্তিনী তরুণীকে গুলী করে হত্যা করার জন্য ইসরাইলী সামরিক বাহিয়েীর পুলিশও সমালোচিত হয়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় একজন সামরিক কর্মকর্তা তরুণীকে গুলী করেছে যখন সে ইতিমধ্যে মাটিতে লুটিয়ে পরে গেছে।
এদিকে মঙ্গলবার সীমান্তে হেঁটে যাওয়া এক মিসরীয়কে ইসরাইলী সেনা হত্যা করে। যখন কোন কিছু ঘটে না তখন তা সন্ত্রাসী কার্যক্রম বলে চালিয়ে দেয় ইসরাইলী সামরিক বাহিনী

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ