ঢাকা, বৃহস্পতিবার 27 October 2016 ১২ কার্তিক ১৪২৩, ২৫ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রামগড়ে ৩ বাঙালিকে অপহরণ করেছে ইউপিডিএফ ॥ ৪ লাখ টাকায় মুক্তি

রামগড় (খাগড়াছড়ি) সংবাদদাতা : মাথায় ঠেকিয়ে রেখেছে অস্ত্র, তৈরি করা হয়েছে কবর, শেষ ইচ্ছা পূরণে অনুমতি দেয়া হয়েছে নামায পড়ার, থেমে থেমে চলছে শারীরিক নির্যাতন, অবশেষে ৪ লাখ টাকা মুক্তিপণের বিনিময়ে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে এসে এমন ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা জানালেন রামগড় থেকে অপহৃত ৩ বাঙালি। ২৫ অক্টোবর মঙ্গলবার সকালে রামগড় পৌর এলাকার ৩ বাঙ্গালিকে অপহরণ করে মুক্তিপণের বিনিময়ে ছেড়ে দিয়েছে পার্বত্য জনসংহতি সমিতি (জেএসএস সংস্কার) গ্রুপের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা- এমনটাই অভিযোগ অপহৃত ও স্থানীয় বাঙালিদের।
এদিকে ঘটনা দ্রুত জানাজানি হলে পৌরসভার বল্টুরাম এলাকায় বাঙালিদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বন্ধ হয়ে যায় ঐ এলাকার যান চলাচল। জনতা ইউপিডিএফ (সংস্কার)-এর রামগড় উপজেলা সভাপতি হরি সাধন বৈঞ্চবকে আটক করলে পুলিশ জনতা থেকে তাকে উদ্ধার করে ছেড়ে দেয়। নিরাপত্তা জোরদারের লক্ষ্যে এলাকায় পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে স্থানীয় এলাকাবাসী বুধবার বিকেলে বিক্ষোভ ও মানববন্ধনের কর্মসূচি ঘোষণা করে।
জানা গেছে, মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার সময় পৌরসভার শ্মশানটিলা এলাকার আবুল খায়ের (৪৮), শাহজাহান (৪০) উভয় পিতা মৃত জাকির হোসেন ও বল্টুরাম টিলার মোস্তফা মিয়া (৩৪) পিতা মৃত মফিজুর রহমান তিনজনই কলা ব্যবসায়ী। কলা ক্রয়ের জন্য উপজেলার পিলাক ঘাট এলাকায় গেলে কয়েকজন ভারি অস্ত্রধারী অস্ত্র ঠেকিয়ে গভীর জঙ্গলে মাটিরাঙ্গা উপজেলার মাইঝ্যা পাড়া নামক এলাকায় নিয়ে হাতপা বেঁধে শারীরিক নির্যাতন করে এবং ৯ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অন্যথায় মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়। এদিকে টাকা দিতে বিলম্ব হওয়ায় তাদের জন্য কবর তৈরি করা ও শেষ ইচ্ছা পূরণে নামায পড়তে বলা হয়।
অপহৃত মোস্তফার বড় ভাই আলম জানান, দুপুরের দিকে ঘরের মোবাইল ফোনে তার ছোট ভাইয়ের কল আসে এবং বলা হয় তাঁকেসহ ৩ জনকে অপহরণ করা হয়েছে। বিকেলের মধ্যে ৯ লক্ষ টাকা নির্দেশনা মোতাবেক না দিলে তাদের হত্যা করা হবে। নির্দেশনা মোতাবেক দেন দরবার করে ৪ লাখ টাকায় রফা হয়। সন্ধ্যার আগেই ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা পাঠানো হয় বাকী টাকা মুক্তির পরে দেয়ার সিন্ধান্ত হলে সন্ধ্যা ৬টার সময় তার ভাইসহ ৩জনকে মুক্তি দেয়া হয়। অপহৃতরা জানান, মাইঝ্যাপাড়া এলাকার গভীর জঙ্গলে প্রায় ২০ থেকে ২৫ জনের একটি ভারি অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদল তাদের ঘেরাও করে রাখে। অপহরণকারীরা নিজেদের জেএসএস সংস্কার গ্রুপের সদস্য বলে দাবি করে এবং মুক্তিপণের টাকায় সদ্য গ্রেফতার হওয়া তাদের নেতা বিপুল চাকমাকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হবে বলেও তারা জানান।
রামগড় থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাইন উদ্দিন খান জানান, এঘটনায় অপহৃত একজন বাদী হয়ে রামগড় থানায় একটি অপহরণ ও চাঁদাবাজি আইনে মামলা করেছেন। অভিযোগ মূলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ