ঢাকা, শুক্রবার 28 October 2016 ১৩ কার্তিক ১৪২৩, ২৬ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দাকোপে ৩৫০ কোটি টাকায় বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু

খুলনা অফিস : খুলনার উপকূলীয় এলাকা দাকোপে এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি পূরণে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২ টি পোল্ডারে ৩৫০ কোটি টাকার বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে চায়নার একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজটি পেয়েছে। কিন্তু মেগা বাজেটের এই প্রকল্পের আওতায় নদী শাসনের ব্যবস্থা না থাকায় এলাকাবাসী হতাশা প্রকাশ করেছেন। ভাঙন প্রতিরোধে কার্যক্রর উদ্যোগ ছাড়া বাঁধ নির্মাণ হলে সরকারের শত শত কোটি টাকার অপচয় ছাড়া বাস্তবভিত্তিক কোন কাজে আসবে না এমন মন্তব্য এলাকাবাসীর। 

নদী বেষ্টিত উপকূলীয় উপজেলা দাকোপবাসীর সারাটি বছর কাটে ভাঙন আতংকে। সিডর আইলার মত প্রাকৃতিক দুর্যোগে বেড়িবাঁধ ভেঙে জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিসহ বছরের অধিকাংশ সময় নদী ভাঙনের কবলে পড়ে অসংখ্য পরিবার হচ্ছে গৃহহারা। ২০০৯ সালের ২৫ মে আইলার তাণ্ডবে দাকোপের ২ টি ইউনিয়নের বেড়িবাঁধ ভেঙে অর্ধলক্ষ মানুষ দীর্ঘ ২১ মাস পানিবন্দী অবস্থায় দুর্বিষহ জীবন কাটাতে বাধ্য হয়। অবশেষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বাঁধ নির্মাণ হলে মানুষ পানিমুক্ত হয়। সেই থেকে দাকোপবাসী ৬০ এর দশকে নির্মিত ওয়াপদাবাঁধ যুগপযোগী নয় উল্লেখ করে ভাঙন প্রতিরোধ ও টেকসই বাঁধ নির্মাণের দাবিতে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে। এমনকি দাকোপ উপজেলা জাতীয় পার্টি গত ২০১৪ সালে নিজ দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য পানি সম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে ভাঙনকবলিত অঞ্চল সরেজমিন পরিদর্শন করান। তারই ফলশ্রুতিতে সরকার উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণে মেগা প্রকল্প গ্রহন করে। 

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, খুলনাঞ্চলের বাগেরহাট জেলার রামপাল ও শরনখোলা উপজেলার ২ টি পোল্ডার এবং দাকোপের ৩২ ও ৩৩ নং পোল্ডার নিয়ে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ৬৯৭ কোটি টাকার উপকূলীয় টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণে একটি প্যাকেজ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। ওই প্রকল্পের আওতায় দাকোপের ২টি পোল্ডারে ৩৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ