ঢাকা, শুক্রবার 28 October 2016 ১৩ কার্তিক ১৪২৩, ২৬ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীর সমাধান ভারত ও পাকিস্তানকেই বের করতে হবে -ব্রিটেন

২৭ অক্টোবর, টাইমস অব ইন্ডিয়া, দৈনিক পাকিস্তান : কাশ্মীর প্রসঙ্গে ব্রিটেনের মত সবসময় একই থাকবে। এটি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক সমস্যা, যা এই দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্রকেই সমাধান করতে হবে বলে মনে করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। এক আলোচনা সভায় তিনি এমনটাই জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত কাশ্মীর প্রসঙ্গের উত্থাপন করা হয়েছিল হাউস অফ কমনস-এ প্রধানমন্ত্রীকে করা সাপ্তাহিক প্রশ্ন-উত্তর পর্বে। প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন-উত্তর পর্বে লেবার দলের প্রতিনিধি পাকিস্তানি সাংসদ জসমিন কুরেশি বলেন, কোনোভাবে কী তিনি পরবর্তী মাসে তাঁর ভারত সফরের সময় কাশ্মীর প্রসঙ্গের উত্থাপন করবেন মোদির সামনে।

এ প্রসঙ্গে মে-র মন্তব্য এই দল যখন ক্ষমতায় এসেছিল, তখন কাশ্মীর প্রসঙ্গে ব্রিটেনের যা মত ছিল, আগামী দিনেও তাই থাকবে। তবে আগামী মাসের ৬ থেকে ৮ নভেম্বর থেরেসা তাঁর ভারত সফরের সময় কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে অবশ্যই আলোচনা করবেন মোদির সঙ্গে।

কুরেশির দাবি, কাশ্মীরের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারে ভারত যেভাবে হস্তক্ষেপ করছে, সে ব্যাপারে কী তিনি কোনও জবাবদিহি চাইবেন ভারতের থেকে। এপ্রসঙ্গে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন।

কুরেশি উত্তর-পশ্চিম ইংল্যান্ডের বোল্টন থেকে পাকিস্তানিদের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন হাউস অফ কমনসে।

ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম ইউরোপের বাইরে বিদেশ সফরে যাচ্ছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। ভারত সফরে ভারত-ব্রিটেন টেক সামিটের উদ্বোধন করবেন। তারপর বেঙ্গালুরু যাবেন মে। মে-র সঙ্গে ভারতে আসছেন ব্রিটেনের শিল্পমন্ত্রী এবং বিভিন্ন ছোট ও মাঝারি শিল্পের প্রতিনিধিরা। 

অন্যদিকে ভারতের ৬৯তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে পাকিস্তান ও শ্রীনগরসহ পুরো কাশ্মীরে পালিত হচ্ছে কালো দিবস। জামায়াতে হুররিয়াত কনফারেন্স এ উপলক্ষে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে হরতাল আহ্বান করেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বেশ কয়েকটি র‌্যালি ও মৌন মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। তবে ভারত নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে সেনাবাহিনী এ ধরনের মিছিল সমাবেশ বানচাল করে দিয়েছে।

কালো দিবস পালন উদ্দেশ্য, কাশ্মীরি ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের দৃষ্টি এড়ানো। সম্প্রতি কাশ্মীরে স্বাধীনতা আন্দোলন তীব্রতর হয়ে উঠেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ