ঢাকা, শুক্রবার 28 October 2016 ১৩ কার্তিক ১৪২৩, ২৬ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মঠবাড়িয়া কলেজে হামলা ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) সংবাদদাতা : মঠবাড়িয়ার দধিভাঙ্গা এ্যাডভোকেট জিয়াউল ফারুক কলেজ ক্যাম্পাসে পাঠদান চলাকালীন সময় অবৈধ অনুপ্রবেশকারী কর্তৃক হামলা ও নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রতিবাদ এবং দোষীদের বিচারের দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। কলেজ ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কলেজ পরিচালনা কমিটি, অভিভাবক এবং স্থানীয়রা অংশগ্রহণ করেন। 

সমাবেশে টিকিকাটা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন তালুকদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ মোঃ ইমাদুল হক, যুবলীগ নেতা মোঃ শিপলু মিয়া, শিক্ষক মোঃ মতিন হক, মোঃ নজরুর ইসলাম ও শিক্ষার্থী মোঃ ইমরান মিয়া প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আনাগোনা বন্ধসহ শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবি জানান। বক্তারা আরও বলেন, ১৯৯৩ সালে কলেজ প্রতিষ্ঠার পর থেকে স্থানীয় একটি মহল কলেজর জমির মালিকানা দাবি করে ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।

মুখমণ্ডল ক্ষতবিক্ষত

মঠবাড়িয়ার সাপলেজা মডেল স্কুলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে গতবাল বৃহস্পতিবার সকালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে এক বখাটে তুলে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে মুখমণ্ডল ক্ষতবিক্ষত করে। এ সময় ওই ছাত্রী চিৎকার দিলে বখাটে তার গলা চেপে ধরে হত্যার হুমকি দিয়ে মুখমণ্ডলে নির্যাতন চালায়। এতে ওই ছাত্রীর ঠোঁট ও জিহ্বাসহ মুখগহ্বর রক্তাক্ত ও যখম হয়। ওই ছাত্রীর চিৎকার শুনে স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বখাটে সঞ্জিব মিস্ত্রী (২৮) পালানোর চেষ্টা করলে তাকে আটক করে স্থানীয়রা থানা পুলিশকে খবর দেয়। সঞ্জিব মিস্ত্রী পার্শ্ববর্তী শরণখোলা উপজেলার রাজেশ্বর গ্রামের ধলু মিস্ত্রীর পুত্র। এলাকাবাসী জানায় গত এক সপ্তাহ আগে সঞ্জিব উপজেলার আমড়াগাছিয়া গ্রামের ফুফাতো ভাই নীল রতনের বাড়িতে বেড়াতে আসে। মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ