ঢাকা, শনিবার 29 October 2016 ১৪ কার্তিক ১৪২৩, ২৭ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নির্বাচন বাতিল করে আমাকে জয়ী ঘোষণা করুন : ট্রাম্প

সংগ্রাম ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, আসন্ন নির্বাচন বাতিল করে তাকে বিজয়ী ঘোষণা করা উচিত। প্রতিদ্বন্দী ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের নীতির (পলিসি) সমালোচনা করে গত বৃহস্পতিবার ওই মন্তব্য করেন ট্রাম্প।

ট্রাম্পের ভাষ্য, হিলারির নীতি এতটাই খারাপ যে ভোট নেওয়ার কোনো কারণ ভেবে পাচ্ছেন না তিনি।

ওহাইও অঙ্গরাজ্যে এক নির্বাচনী প্রচারে ট্রাম্প বলেন, এ মুহূর্তে তিনি ভাবছেন কেনই-বা নির্বাচন হচ্ছে, নির্বাচন বাতিল করে তাঁকে বিজয়ী ঘোষণা করলেই হয়।

আসন্ন নির্বাচনে ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকানদের নিজের পক্ষে নেওয়ার জন্য নতুন বিজ্ঞাপন তৈরি করেছেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় টিভি চ্যানেলগুলোতে এই বিজ্ঞাপন প্রচার করা হবে বলে ট্রাম্পের প্রচারশিবির থেকে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপনে ট্রাম্প বলেছেন, তিনি ভারতকে ভালোবাসেন। হিন্দুদের ভালোবাসেন। তিনি প্রেসিডেন্ট হলে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর হবে।

বিজ্ঞাপনচিত্রে ট্রাম্প হিন্দিতেও কিছু বলার চেষ্টা করেছেন।

সিএনএন জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৫০টি অঙ্গরাজ্যেই চলছে আগাম ভোটগ্রহণ। আগাম ভোটে এ পর্যন্ত ৩৫টি অঙ্গরাজ্যে এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। শুধু তাই নয়, ১২টি সুইংস্টেট নিয়ে যে শঙ্কা ছিল তাও কেটে গেছে। সেখানেও ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারির ঝুড়িতেই ভোট পড়ছে বেশি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, আইন সংগঠন ও প্রগতিশীল প্রার্থীদের তথ্য সংগ্রহে শীর্ষস্থানীয় জরিপ সংস্থা ক্যাটালিস্টের সাম্প্রতিক এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বৃহস্পতিবার সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ হয়েছে। ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। কিন্তু দুই মাস আগে থেকেই শুরু হয়ে গেছে আগাম ভোট। নিবন্ধিত-অনিবন্ধিত মিলিয়ে এ পর্যন্ত প্রায় এক কোটি ভোটার আগাম ভোট দিয়েছেন। তাদের অর্ধেকেরও বেশি সাবেক ফার্স্ট লেডি হিলারিকেই ভোট দিচ্ছেন। ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও এত ভোট পাননি ওবামা। বিশেষ করে নেভাদা, নর্থ ক্যারোলিনা ও অ্যারিজোনায় ওবামার ২০১২ সালের তুলনায় দ্বিগুণ ভোট পড়ছে ডেমোক্রেটিকের পক্ষে। অন্যদিকে হাতেগোনা কয়েকটি রাজ্যে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প এগিয়ে রয়েছেন। আইওয়া সেগুলোর মধ্যে অন্যতম।

এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের ব্যাটল গ্রাউন্ড বা রণক্ষেত্র হিসেবে পরিচিত সেই ১২ সুইংস্টেটে এর আগাম ভোটও হিলারিই পাচ্ছেন। সুইংস্টেটগুলোতে এ পর্যন্ত ৪৬ লাখ ভোটার আগাম ভোট দিয়েছেন। এই ১২ স্টেটের ভোটারদের নির্দিষ্ট কোনো দল নেই। যখন যাকে ভালো লাগে, ভোটাররা তাকেই ভোট দেন। আগের নির্বাচনগুলোতে দেখা গেছে, সুইংস্টেট যার দিকে ঢলেছে তিনিই প্রেসিডেন্ট হয়েছেন। সিএনএনের এ দিনের প্রতিবেদনে সুইংস্টেটখ্যাত অ্যারিজোনা, কলোরাডো, জর্জিয়া, ফ্লোরিডা, আইওয়া, নেভাদা, নর্থ ক্যারোলিনা, উটা হতে হিলারি-ট্র্যাম্পের কী অবস্থা তার একটি তুলনা চিত্র দেওয়া হয়েছে। অ্যারিজোনার দুই-তৃতীয়াংশ ভোটার এর মধ্যেই ভোট দিয়ে ফেলেছেন। রাজ্যটিতে এবার হিলারির দাপট বেশি। এ বছর ৪,১১৬ ভোটার নতুন করে ডেমোক্রেটিক দলে নিবন্ধন করেছেন। ২০১২ সালে সেখানে ডেমোক্রেটিকের নিবন্ধিত ভোটার ছিল ২১,১৭৯। অ্যারিজোনায় রিপাবলিকানদের তেমন অগ্রগতি হয়নি। কলোরাডোয় এই প্রথমবারের মতো ভোটাররা ঘরে বসেই ই-মেইল ভোট দিতে পারছেন। সেখানেও হিলারির সুখবর।

গত শনি থেকে বুধবার পর্যন্ত রিপাবলিকানকে ১০ হাজার ভোটে পেছনে ফেলেছেন ডেমোক্র্যাট। ২০১২ সালের ঠিক এ সময়ে উল্টো রিপাবলিকানরাই ৭৬০০ ভোটে এগিয়ে ছিলেন।

আইওয়ায় ৭২০০, ফ্লোরিডায় ১৮১২০, নেভাদায় ১৫০০০, নর্থ ক্যারোলাইনায় প্রায় ১ লাখেরও বেশি ভোটে এবং উটাহতে ১৫৪৩৪ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন হিলারি। জর্জিয়ায় এ পর্যন্ত ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে, যা ২০১২ সালের তুলনায় অনেক বেশি। তবে কার পক্ষে বেশি ভোট পড়ছে তা বোঝা যাচ্ছে না। ভোটাররা ডেমোক্রেটিক-রিপাবলিকান কোনো দলেই নিবন্ধন করেননি। এদিকে আইওয়া, ফ্লোরিডার আগাম ভোটে ট্রাম্পই এগিয়ে রয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ