ঢাকা, শনিবার 29 October 2016 ১৪ কার্তিক ১৪২৩, ২৭ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামের চকবাজারে যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ॥ আহত ৫

চট্টগ্রাম অফিস : চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার কে.বি. আমান আলী রোডে টমটমের চাঁদা ভাগাভাগি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে। এর মধ্যে দুইজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভাঙচুর হয়েছে অন্তত ৯টি টমটম এবং পাঁচটি দোকান। জানা গেছে, চাঁদাবাজি নিয়ে চকবাজার এলাকার যুবলীগ নেতা নুর মোস্তফা টিনু এবং ১৭নং বাকলিয়া ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা মহিউদ্দিন গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ট্রাফিক পুলিশ প্রশাসনের কড়াকড়ির কারণে চট্টগ্রাম নগরীর রাহাত্তারপুল হতে চকাবাজার পর্যন্ত কে বি আমান আলী রোডে ব্যাটারিচালিত টমটমের উৎপাত মাঝে কিছুটা কমলেও কিছুদিন ধরে ফের বেড়ে যায়। যুবলীগ নেতা নুর মোস্তফা টিনু দলীয় প্রভাব খাটিয়ে এসব টমটম নিয়ন্ত্রণ করে আসছিল। অবৈধ হওয়ার কারণে প্রতিটি টমটমকে দৈনিক ১৫০ টাকা হারে চাঁদা দিতে হয়। যা টিনু গ্রুপ ভাগাভাগি করে নেয়। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে আরেক যুবলীগ নেতা মহিউদ্দিন গ্রুপ টমটম চালকদের কাছে চাঁদা দাবি করে। এ সময় তার গ্রুপের লোকজন ধোনিরপুল এলাকায় অন্তত ৯টি টমটম ভাঙচুর করে চলে যায়। তাদের আকস্মিক হামলায় এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। ভাঙচুর করে তারা চলে যাওয়ার পর রাত ৮টার দিকে টিনু গ্রুপের শতাধিক কর্মী ওই এলাকায় সশস্ত্র অবস্থায় সেখানে মহড়া দেয়। এসময় তারা রিপন স্টোর নামে একটি কসমেটিকের দোকান, তিনটি মুরগির দোকান এবং একটি মাংসের দোকান ভাঙচুর করে। পরপর দুই গ্রুপের হামলা-পাল্টা হামলার কারণে এলাকাটি জনশূন্য হয়ে পড়ে। দোকান-পাট বন্ধ হয়ে যায়। টিনু গ্রুপের লোকজন মহিউদ্দিন গ্রুপের অনুসারী মাসুদের জামান ভবনের ইটপাটকেলও নিক্ষেপ করে। তবে হামলা-পাল্টা হামলার বিষয়ে কেউ প্রকাশ্যে কোন অভিযোগ এমনকি কথা বলতে পর্যন্ত রাজি হয়নি। এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এই ঘটনায় কেউ কেউ লুটপাটের শিকার হয়েছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত মীর মো. নুরুল হুদা বলেন, মহিউদ্দিন এবং টিনু গ্রুপের মধ্যে বাজারের ইজারা নিয়ে আগে থেকেই বিরোধ ছিল। সন্ধ্যায় এক গ্রুপ এসে টমটম ভাঙচুর করে চলে যায়। পরে অপর গ্রুপ এসে মহড়া দেয়। তবে থানা পুলিশ তৎপর থাকার ফলে উভয়পক্ষ মুখোমুখি হতে পারেনি। কেউ থানায় কোন অভিযোগ করতে আসেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ