ঢাকা, শনিবার 29 October 2016 ১৪ কার্তিক ১৪২৩, ২৭ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে ভেজাল দুধ তৈরীর সংঘবদ্ধ চক্র বেপরোয়া

শাহজাদপুর ও সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা : গত সোমবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার ডায়া বাজার থেকে পুলিশ ১০ মণ নকল ও ভেজাল দুধসহ সংঘবদ্ধ চক্রের এক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে। আটককৃত দুধ ব্যবসায়ীর নাম গোবিন্দ ঘোষ (৩০)।
শাহজাদপুরে এক ধরণের অসাধু ব্যবসায়ী ভেজাল দুধ প্রস্তুত ও তা বাজারজাত করণে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
এইসব ভেজাল ব্যবসায়ীরা সব সময়ই সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। সুযোগ পেলেই দুধে ভেজাল মিশিয়ে বাজারজাত করে।
তবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের তৎপরতায় এরা ধরা পরে। জেলজরিমানাও হয়। কিছুদিন বন্ধ থাকার পর আবার সুযোগ বুঝেই ব্যবসা শুরু করে।
এমনই অবস্থায় গত সোমবার দুপুরে শাহজাদপুর উপজেলার ডায়া বাজার থেকে পুলিশ ১০ মণ নকল ও ভেজাল দুধসহ সংঘবদ্ধ চক্রের দুধ ব্যবসায়ী গোবিন্দ ঘোষ (৩০) কে আটক করে।
সে পোরজনা গ্রামের গৌর ঘোষের ছেলে।
দীর্ঘদিন ধরে নকল ও ভেজাল দুধ তৈরি করে বাঘাবাড়িতে অবস্থিত ঈগলু-এ্যামোমিল্ক কোম্পানিতে এ দুধ সরবরাহ করে আসছিল।
গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ এইদিন অভিযান চালিয়ে নকল ও ভেজাল দুধ তৈরির উপকরণ গুড়া দুধ, চিনি, লবণ, চিটা গুড়, রাসায়নিক কেমিক্যাল ও নানা সরঞ্জামসহ ওই ভেজাল ও নকল দুধ আটক করে।
এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুধ ব্যবসায়ী  গোবিন্দকে ৭ দিনের বিনাশ্রম জেল ও এ্যামোমিল্ক কোম্পানি  কে নগদ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এ ছাড়া নকল দুধ ও জব্দকৃত মালামাল ধ্বংস করে ফেলা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম আহমেদ এর সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পোরজনা গ্রামের একটি সংঘবদ্ধ চক্র ভেজাল ও নকল দুধ তৈরি করে বিভিন্ন কোম্পানিতে সরবরাহর মাধ্যমে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়  ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছিল।
এরই একজনকে পুলিশ হাতে নাতে ধরতে সক্ষম হয়েছে। এর ফলে শিশু খাদ্য নিয়ে এই অনিয়ম ও দুর্নীতি কিছুটা কমে আসবে।
সচেতন মহলের দাবি নকল ও  ভেজাল দুধ তৈরীকারী এই সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
অন্যথায় এরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ