ঢাকা, শনিবার 29 October 2016 ১৪ কার্তিক ১৪২৩, ২৭ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

অভয়নগরে তিন দিনে অর্ধশত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

অভয়নগর (যশোর) সংবাদদাতা : যশোরের অভয়নগরের নওয়াপাড়া নৌ-বন্দরে তিন দিনে অর্ধশত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জনিয়েছে। নওয়াপাড়া নৌ-বন্দরের ভৈরব নদীর তীরভূমিতে অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয় নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার সকালে ১০ টি অবৈধ স্থাপনা  উচ্ছেদ করা হয়।
জানা গেছে, গত মঙ্গল ও বুধবার নওয়াপাড়া বাজারের মাংস ও মাছ পট্টির ১৬টি, পৌরসভার গণ সৌচাগার, আবাসিক ভবন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ প্রায় ৪৫ টি স্থাপনা বিআইডব্লিউটিএ এর অত্যাধুনিক জাহাজ সামিরা এর মাধ্যমে গুড়িয়ে দেয়া হয়। উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন যশোর জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন অভয়নগর থানা পুলিশের বাহিনী, বিআইডব্লিউটিএ এর যুগ্ম-পরিচালক (ঢাকা) মোঃ সাইফুল হক খান, খুলনার উপ-পরিচালক একে এম কায়সারুল ইসলাম, নওয়াপাড়া নৌ-বন্দরের সহকারী পরিচালক মোঃ মাসুদ আলম প্রমুখ।
উল্লেখ্য নওয়াপাড়া পৌরসভাধীন ভাটপাড়া ফেরিঘাট থেকে মহাকাল শ্মশান ঘাট পর্যন্ত নৌ-বন্দর ঘোষিত হয় ২০০৪ সালে। বন্দরের কার্যক্রম শুরু হয় ২০০৭ সাল থেকে। প্রায় ১২ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে গড়ে ওঠা (ভৈরব নদীর উভয় তীর) নওয়াপাড়া নৌ-বন্দর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ নদীর দক্ষিণ-পশ্চিম তীর জুড়ে গড়ে ওঠে অসংখ্য অবৈধ পাকা-সেমি পাকা, টিন সেডের স্থাপনা। বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় ভৈরব নদ এর তীরভূমির অবৈধ দখলদারদের নির্মিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে দ্রুত ভৈরব নদী ড্রেজিং করে নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে এনে স্রোতধারা স্বাভাবিক রাখার পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ।
ভৈরব নদের তীরভূমির দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়ের ৮৬ ব্যক্তির পাকা, আধা-পাকা, টিন ও কাঠের ঘর নির্মাণ করে বসবাস ও গুদাম-দোকান ভাড়া দিয়ে চলেছে। অব্যাহতভাবে এ সকল ব্যক্তির অবৈধদখল মুক্ত করে বন্দরকে উজ্জীবিত রাখার লক্ষ্যে এ অভিযান।
যশোর জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান জানান, নদীর নাব্যতা ঠিক রাখতে নদী তীরের সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ